গবেষণাই ছিল ড. ওয়াজেদ মিয়ার জীবনের ব্রত: গণপূর্তমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার:  গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া ছিলেন সহজ-সরল একজন মিতভাষী মানুষ। নিভৃতচারী এ বিজ্ঞানীর জীবনে গবেষণাই ছিল ব্রত।

মন্ত্রী আজ বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মোহাম্মদপুর টাউনহলে স্মরণসভা ও ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া স্মৃতি পাঠাগারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ড. এম এ ওয়াজেদের অবদান রয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর এ প্রকল্প গ্রহণে বৈজ্ঞানিক বাস্তবতা যাচাইয়ে ড. ওয়াজেদ ভূমিকা রাখেন। তিনি সর্বদা জ্ঞান আহরণে সময় দিয়েছেন, আবার সে জ্ঞানকে সমাজে প্রয়োগেও নিরবে কাজ করে গেছেন আজীবন।

মোশাররফ হোসেন বলেন, ক্ষমতার খুব কাছে অবস্থান করেও ড. ওয়াজেদ মিয়া কখনই তার অপব্যবহার করেননি। রবং নিরবে-নিভৃতে তার লক্ষ্যপথে এগিয়ে গেছেন। তার জীবনে ক্ষমতার কোনো মোহ ছিল না। রাষ্ট্রীয়ভাবে তিনি যতটুকু সম্মান পেয়েছেন, তা তাঁর যোগ্যতার গুণেই পেয়েছেন। মন্ত্রী পাঠাগারের উন্নয়নে সম্পৃক্ত হওয়ার আশ্বাস দেন।

পাঠাগার পরিচালনা কমিটির সভাপতি সিদ্দিক হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন সংসদ সদস্য জাহাঙ্গীর করীর নানক, ছবি বিশ্বাস ও উম্মে কুলসুম স্মৃতি এবং গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব মোঃ শহীদ উল্লা খন্দকার। পরে মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া করা হয়।