সকোত্রা দ্বীপে গেল সৌদি প্রতিনিধি দল

নিউজ ডেস্ক: সংযুক্ত আরব আমিরাতের সেনাবাহিনী ইয়েমেনের সকোত্রা দ্বীপ দখলে নেয়ার পর সেখানে পরিস্থিতি সামলাতে পৌঁছেছে সৌদি আরবের প্রতিনিধি দল। তবে, এখন পর্যন্ত কোন সমাধান খুঁজে বের করতে পারেনি তারা।

জানা গেছে, ইয়েমেনি সরকারের সঙ্গে এ বিষয়ে এক বৈঠকে বসেছিল সৌদি প্রতিনিধিদল। তবে বৈঠকটিতে কোন গ্রহণযোগ্য সমাধান পাওয়া যায়নি। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা।

শুক্রবার এক ইয়েমেনি কর্মকর্তা বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত দেশটির প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবস্থিত সকোত্রা দ্বীপের বিমানবন্দর ও সমুদ্রের দখল নিয়ে নিয়েছে। পাশাপাশি, দ্বীপটিতে আটকে রাখা হয়েছে ইয়েমেনের প্রধানমন্ত্রী আহমেদ ওবেইর বিন দাঘর ও আরো ১০ সরকারি কর্মকর্তাকে। এর আগের দিনই দ্বীপটিতে ইয়েমেন সরকারের সঙ্গে আলোচনা না করেই শতাধিক সেনা ও চারটি সামরিক যান মোতায়েন করেছে আমিরাত।

বর্তমানে পরিস্থিতি সামলাতে সকোত্রায় অবস্থান করছে সৌদি আরবের বিশেষ প্রতিনিধিদল। সূত্রের বরাত দিয়ে আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, প্রতিনিধিদল প্রধানমন্ত্রী দাঘরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছে ও বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছে। তবে তাতে কোন সমাধান বেরিয়ে আসেনি।

আমিরাতের এমন পদক্ষেপে ক্ষুব্ধ স্থানীয় বাসিন্দারা। ইয়েমেনের যুব এবং ক্রীড়া বিষয়ক মন্ত্রী নায়েফ আল-বাকরি বার্তা সংস্থা আনাদোলুকে জানিয়েছেন, ইয়েমেনের জনগণ একটি বালুর কণাও আত্মসমর্পণ করবে না। তিনি বলেন, ইয়েমেনের নাগরিকরা তাদের ভূমি, দ্বীপ ও উপকূল রক্ষা করবে। আমরা একটি বালুর কণাও আত্মসমর্পণ করবো না।

এদিকে, আমিরাতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আনোয়ার গার্গশ এক টুইটে জানিয়েছেন, সকোত্রার সঙ্গে তার দেশের পারিবারিক ও ঐতিহাসিক সম্পর্ক রয়েছে। তিনি বলেন, আমরা (সকোত্রার বাসিন্দাদের) তাদের ভারসাম্যতা, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা ও জীবিকার জন্য প্রয়োজনীয় সমর্থন দেব।

ইয়েমেন সরকারের এক সূত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছে, আমিরাতের সেনাবাহিনীর এমন আগমন স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। কেননা, সকোত্রায় ইরান সমর্থিত স্থানীয় হুতি বিদ্রোহীদের কোন উপস্থিতি নেই।