ব্রাশফায়ারে নিহতদের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর

নিউজ ডেস্ক: রাঙামাটির নানিয়ারচর মেজরপাড়া-বেতছড়ি এলাকায় দুর্বৃত্তদের ব্রাশফায়ারে নিহত ইউপিডিএফের (গণতান্ত্রিক)৫ নেতাকর্মীর মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ওসি সাহাদাত হোসেন টিটো শনিবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে নিহতদের মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এর মধ্যে ইউপিডিএফ’র (গণতান্ত্রিক) আহ্বাযক তপন জ্যোতি চাকমা বর্মা (৪৮) এবং তনয় চাকমা’র মরদেহ নিতে শনিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত কেউ না আসায় প্রশাসনের উদ্যোগে জেলাসদরের তেঁতুলতলায় তাদের রাজনৈতিক সহকর্মীদের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়।

বাকি তিনজন জনসংহতি নেতা সেতু লাল চাকমার (৪০)মরদেহ মহালছড়ি সদরের স’মিল পাড়া, ভাড়ায় চালিত মাইক্রোচালক পানছড়ির বাসিন্দা মো, সজিবের (৩৬) মরদেহ ফাতেমানগরে এবং মহালছড়ি যুব সমিতির সভাপতি সুজন চাকমার (৩২) মরদেহ মহালছড়ি উপজেলার মুবাছড়ি ইউনিয়নের খুলরাম পাড়ায় নিয় যান স্বজনরা।

এসব মরদেহ শুক্রবার রাতেই গ্রহণ করেন স্বজনরা। শনিবার তাদের দাহ ও দাফন সম্পন্ন হবার কথা রয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা গ্রুপ-জেএসএস সংস্কার) কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি শক্তিমান চাকমাকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এসময় গুলিবিদ্ধ হন তার সঙ্গে থাকা একই সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রূপম চাকমা। পরে শুক্রবার সকালে শক্তিমান চাকমার শেষকৃত্যে যাবার সময় গাড়িবহরে ব্রাশফায়ার করে পাঁচজনকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। হামলার পর সন্ধ্যায় পুলিশ ও সেনাবাহিনীর কড়া নিরাপত্তায় বেতছড়ি থেকে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়িতে আনা হয়।