যে মন্দিরে ৪০০ বছর পর প্রবেশ করল পুরুষ

নিউজ ডেস্ক: ৪০০ বছর পর মন্দিরের দরজায় প্রবেশ করতে পারলেন পুরুষরা। ভারতের উড়িষ্যা রাজ্যের মা পঞ্চবরাহী মন্দিরের সোমবার পাঁচ পুরুষ প্রবেশ করেন। এতোদিন একমাত্র দলিত নারীরাই এই মন্দিরে প্রবেশ করতে পারতেন। পূজা থেকে শুরু করে দেবীর অভিষেক সব কাজই করতেন গ্রামের দলিত নারীরা।

মন্দির পরিচালনাও করতেন পাঁচ নারী পুরোহিত। গত ৪০০ বছর ধরে মন্দির পরিষ্কার করা থেকে শুরু করে পূজোর আয়োজনের যাবতীয় কাজের ভার ছিল পুরীর কাছে কেন্দ্রাপাড়া জেরার সমুদ্র উপকূলবর্তী গ্রামের বিবাহিত দলিত নারীদের ওপর।

কিন্তু সমুদ্রের জলস্তর বাড়ার কারণে মন্দিরটি প্রায় ডুবতে বসেছিল। দেবীকে সেখান থেকে সরিয়ে পাহাড়ের উপরে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার জন্য ৫ পুরুষকে মন্দিরে প্রবেশের অধিকার দেন নারী পুরোহিতরা।

প্রায় দেড় টন ওজনের কালো পাথরের তৈরি পাঁচ দেবী মূর্তিকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা তাদের ছিল না। সে কারণেই পাঁচ পুরুষকে মন্দিরের গর্ভগৃহে প্রবেশ করার অনুমতি দেন তারা।

গত ৪০০ বছরে ওই পাঁচ পুরুষ প্রথমবারের মতো মন্দিরটিতে পা রাখলেন। তারা দেবী মূর্তি সরিয়ে দ্বীপের উঁচু স্থানে নতুন তৈরি মন্দিরে স্থাপন করেন। তারপর অবশ্য নারী পুরহিতরা দেবী মূর্তি শুদ্ধ করার পূজা করেন।

গ্রামবাসীদের বিশ্বাস মা পঞ্চবরাহী সব সরম প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে তাদের রক্ষা করেন। সেই বিশ্বাসের কারণেই দেবীর পূজায় কোনো অনিয়ম হতে দেন না তারা। প্রতিবারই বর্ষায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় গ্রামটি। বিশ্বব্যাংকের সাহায্যেই এখানকার গ্রামবাসীদেরও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করেছে সরকার। সূত্র: জিনিউজ।