ফুটপাতের মা-মেয়ের দায়িত্ব নিল সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়

 

নিউজ ডেস্ক : ফুটপাতের সেই ‘মেয়েটির’ পড়াশোনার দায়িত্ব নিয়েছে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে শিশুটির শারীরিক প্রতিবন্ধী মাকে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড দেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার সচিবালয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে ওই শারীরিক প্রতিবন্ধী মা কোহিনুরের হাতে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড তুলে দেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। সেখানে তিনি ওই শিশু ফাতেমাতুজ্জোহরার লেখাপড়ার দায়িত্ব নেওয়ার কথা জানান।

অনুষ্ঠানে সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, দুই বাসের প্রতিযোগিতায় হাত হারানোর পর প্রাণ হারানো রাজীব হোসেনের পরিবারকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে পক্ষ থেকে এককালীন ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে রাজীবের দুই এতিম ভাইকে মীরপুরের শিশু পরিবারে রেখে পড়াশোনা করানোর দায়িত্ব নেওয়ারও প্রস্তাব করা হয়েছে ওই পরিবারটিকে। পরিবারটি যদি রাজি হয়, তাহলে এই দায়িত্ব সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় নেবে।

শারীরিক প্রতিবন্ধী মা কোহিনুরের হাতে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড তুলে দেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ১৮ এপ্রিল, সচিবালয়, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ছবি: মোশতাক আহমেদশারীরিক প্রতিবন্ধী মা কোহিনুরের হাতে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড তুলে দেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ১৮ এপ্রিল, সচিবালয়, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ছবি: মোশতাক আহমেদ৬ এপ্রিল প্রথম আলোয় সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক ‘মানুষের গল্প, ফুটপাতের মেয়েটি’, শিরোনামে একটি লেখা লেখেন। সেখানে শারীরিক প্রতিবন্ধী কোহিনুর ও তাঁর শিশুমেয়ে ফাতেমাতুজ্জোহরার অসহায় জীবনের কথা তুলে ধরা হয়। সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, ‘ওই লেখা আমাকে আলোড়িত করেছে।’ তিনি জানান, লেখাটি পড়ার পর তিনি তাৎক্ষণিকভাবে সমাজসেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে ওদের খোঁজখবর নেন। ফুটপাতের সেই ‘মেয়েটির’ পড়াশোনার দায়িত্ব নিয়েছে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে শিশুটির শারীরিক প্রতিবন্ধী মাকে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড দেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার সচিবালয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে ওই শারীরিক প্রতিবন্ধী মা কোহিনুরের হাতে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড তুলে দেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। সেখানে তিনি ওই শিশু ফাতেমাতুজ্জোহরার লেখাপড়ার দায়িত্ব নেওয়ার কথা জানান।

অনুষ্ঠানে সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, দুই বাসের প্রতিযোগিতায় হাত হারানোর পর প্রাণ হারানো রাজীব হোসেনের পরিবারকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে পক্ষ থেকে এককালীন ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে রাজীবের দুই এতিম ভাইকে মীরপুরের শিশু পরিবারে রেখে পড়াশোনা করানোর দায়িত্ব নেওয়ারও প্রস্তাব করা হয়েছে ওই পরিবারটিকে। পরিবারটি যদি রাজি হয়, তাহলে এই দায়িত্ব সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় নেবে।

শারীরিক প্রতিবন্ধী মা কোহিনুরের হাতে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড তুলে দেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ১৮ এপ্রিল, সচিবালয়, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ছবি: মোশতাক আহমেদশারীরিক প্রতিবন্ধী মা কোহিনুরের হাতে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড তুলে দেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ১৮ এপ্রিল, সচিবালয়, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ছবি: মোশতাক আহমেদ৬ এপ্রিল প্রথম আলোয় সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক ‘মানুষের গল্প, ফুটপাতের মেয়েটি’, শিরোনামে একটি লেখা লেখেন। সেখানে শারীরিক প্রতিবন্ধী কোহিনুর ও তাঁর শিশুমেয়ে ফাতেমাতুজ্জোহরার অসহায় জীবনের কথা তুলে ধরা হয়। সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, ‘ওই লেখা আমাকে আলোড়িত করেছে।’ তিনি জানান, লেখাটি পড়ার পর তিনি তাৎক্ষণিকভাবে সমাজসেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে ওদের খোঁজখবর নেন।