আগে কঠোর আন্দোলন, পরে নির্বাচন : গয়েশ্বর

নিউজ ডেস্ক : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, চলমান শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না। তার মুক্তির জন্য কঠোর আন্দোলন করতে হবে। আগে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়ার মুক্তি, তারপর নির্বাচনের চিন্তা করতে হবে।

তিনি বলেন, জনগণের কাছে ম্যাসেজ যাচ্ছে বিএনপির কাছে নির্বাচনটা বড়, খালেদার মুক্তি নয়। তাহলে সরকার কেন তাকে মুক্তি দেবে। তারা অপেক্ষায় আছে যে কোনো কায়দায় বিএনপিকে নির্বাচনে আনার। কারণ বিএনপিকে যদি কোনোভাবে নির্বাচনে নামানো যায় তাহলে আগের নির্বাচন ও আগামী নির্বাচনের বৈধতা আদায় হয়ে যাবে।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদ সভায় এসব কথা বলেন তিনি। ‘খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং ইলিয়াস আলীর সন্ধানের’ দাবিতে এই প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে ‘ইলিয়াস মুক্তি যুব সংগ্রাম পরিষদ’ ও ‘ইলিয়াস মুক্তি ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ’।

ইলিয়াস মুক্তি যুব সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মিজানুর রহমান মিজানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, স্বেচ্ছাসেবকবিষয়ক সম্পাদক মীর শরাফত আলী সফু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ।

গয়েশ্বর বলেন, নেত্রী যখন জেলে গেলেন তখন কে কখন কিভাবে প্রতিবাদ করবেন তাদের ব্যাপার। যিনি কারাগারের ভেতেরে আছেন তিনি বলে দেবেন কোথায় কিভাবে আন্দোলন করবেন? এই সরকারের আচরণ কেমন তা কি আমরা কেউ বুঝি না। এই সরকারের বিরুদ্ধে কি চলমান শন্তিপূর্ণ আন্দোলেনের মাধ্যমে খালেদাকে মুক্ত করে আনা যাবে?

তিনি বলেন, আমরা ঐক্য চাই। তবে সেই ঐক্য মান্নান ভূঁইয়ার মতো খালেদাকে মাইনাসের ঐক্য চাই না। কারাগারে থাকাকালীন পত্রপত্রিকার মাধ্যমে আন্দোলন নিয়ে আমাদের দলের যে অবস্থা দেখলাম তা হলো- খালেদা জিয়ার মুক্তি ও আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি। তার মানে খালেদার মুক্তি না হলেও আমরা নির্বাচনে যাব। আবার বলা হচ্ছে, আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে। তাহলে কি নির্বাচনে ক্ষমতায় যাওয়ার পর আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবেন?

তিনি বলেন, আমাদের দাবি একটা নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার চাই। হাসিনা মার্কা কোনো সরকার চাই না। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার হলে খালেদা জিয়া নির্বাচন করতে পারবেন। কারণ মহিউদ্দিন খান আলমগীর ও মোফাজ্জল হোসেন মায়া চৌধুরীসহ যারা সাজাপ্রাপ্ত আছেন তারা যদি নির্বাচন করতে পারেন তাহলে খালেদা জিয়াও নির্বাচন করতে পারবেন।