প্রাচীন ঐতিহ্য নতুন প্রজন্মের কাছে তোলে ধরতে হবে

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের ঐতিহাসিক সার্কিট হাউজ মাঠে অনুষ্ঠিত হলো প্রাচীন ঐতিহ্যের ঘোড়াদৌড় প্রতিযোগিতা।

১৫ এপ্রিল রবিবার বিকালে আবহমান গ্রাম-বাংলার প্রধান আকর্ষণ ঘোড়াদৌড় প্রতিযোগিতা’র আয়োজন করে নগরবাসীকে নির্মল আনন্দের বর্ণচ্ছ্বটায় মাতিয়েছেন ময়মনসিংহ পৌরসভা কর্তৃপক্ষ।

আধুনিক জীবনে নানা ব্যস্ততা আর ভিন্নধর্মী বিনোদনের সমারোহে ঘোড়াদৌড় প্রতিযোগিতা হারিয়ে যেতে বসলেও এ খেলাটিকে বাঁচিয়ে রাখতে ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটুর উদ্যোগে এ আয়োজনের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন-ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার জি এম সালেহ উদ্দিন ও পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি। তাঁরা বলেন-বাঙালির চিরায়ত উৎসব পহেলা বৈশাখের ঠিক পরের দিন প্রাচীন গ্রাম বাংলার এ ঐতিহ্য নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার এ প্রয়াস অব্যাহত রাখতে হবে। তাদের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে একই রকম কথা জানান জেলা প্রশাসক (ডিসি) ড. সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস, জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) সৈয়দ নুরুল ইসলাম।

যুদ্ধজয়ের সংকল্পই যেন প্রত্যেক ঘোড়সওয়ারের মাঝে। ঘোড়ার পিঠে চেপে ধুলো উড়িয়ে রশি টেনে তীরের বেগে ছুটছেন তারা। চারিদিকে মুহুর্মুহু করতালি। বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসনের সর্বোচ্চ কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সাধারণ সমর্থক-সবার মাঝেই অন্যরকম এক উত্তেজনা।হাজারো মানুষের মিলনমেলায় বাঁধভাঙা আনন্দের এসব মনোমুগ্ধকর দৃশ্যকাব্য রচিত হয়েছে ময়মনসিংহ নগরীর ঐতিহাসিক সার্কিট হাউস মাঠে।

দৃষ্টিনন্দন এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেন জামালপুর, শেরপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন জেলার সেরা ঘোড়সওয়াররা। বিকেল গড়াতেই ‘যুদ্ধের ময়দানে’ অবতীর্ণ হন এসব জেলার ৫৩ অশ্বারোহী। কদম ও দাপট দৌড়ে বিজয়মাল্য পড়েন মোট ১৮ প্রতিযোগী।

প্রিন্স, ঢাকা