রাজনীতিতে জড়াব কিনা এখনও ভাবিনি: সাকিব

নিউজ ডেস্ক: গত সেপ্টেম্বরে রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গনসংযোগে দেখা গিয়েছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে।

আওয়ামী লীগ থেকে মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক রাশেক রহমানের জন্য দোয়া চাইতে গিয়েছিলেন সাকিব। রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠে ক্রিকেট ‘কথন ও কর্মশালায়’ তিনি রাশেক রহমানের জন্য দোয়া চান। এরপর সাকিবের রাজনীতিতে জড়ানো নিয়ে গুঞ্জন বাড়তে থাকে।

তবে রাজনৈতিক বিভিন্ন নেতাদের আমন্ত্রণে সাড়া দিলেও ক্যারিয়ার শেষে সরাসরি রাজনীতিতে জড়ানোর কথা কখনোই বলেননি সাকিব। আপাতত রাজনীতি নিয়ে কোনো ইচ্ছে নেই বলে বেশ কয়েকবার বলেছেন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার।

ক্যারিয়ার শেষে তারকা ক্রিকেটারদের রাজনীতিতে জড়ানোটা নতুন কিছু নয়। পাকিস্তানের কিংবদন্তি ক্রিকেটার ইমরান খান, পাভেজ মোশাররফ ভারতের শচিন টেন্ডুলকার, মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন, মন সুর আলী খান পদৌতি, বিনোদ কাম্বলি ও নভজোৎ সিং সিধু; শ্রীলঙ্কার সনাৎ জয়াসুরিয়া, অর্জুন রানাতুঙ্গার মতো তারকারা ক্রিকেটাররা ক্যারিয়ার শেষ করে রাজনীতিতে জড়ান।

আবারও এ নিয়ে প্রশ্ন আসলো সাকিবের সামনে। সেটাও বিদেশের মাটিতে। কলকাতায় গতকাল সাকিবকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, অবসরের পর কি রাজনীতিতে জড়াবেন? জবাবে সাকিব বলেন, ‘ভবিষ্যতের কথা কেউ বলতে পারে না। আমি বর্তমানেই থাকতে চাই। তবে আমি জোর দিয়ে কিছুই বলছি না। রাজনীতিতে জড়াব কিনা তা এখনও ভাবিনি। তাই এ মুহূর্তে এটা (রাজনীতি) সম্পর্কে বলাটা কঠিন। ক্রিকেট আমার জীবন এবং এখানেই কেবল আমার দৃষ্টি থাকবে।’

আঙ্গুলের চোটের কারণে জাতীয় দলের হয়ে সবশেষ নিদাহাস ট্রফিতে শুরুর দিকে খেলতে পারেননি সাকিব। তবে ফাইনাল ম্যাচ এবং গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে সাকিব দলে ছিলেন। চোট কাটিয়ে এখন পুরোপুরো সুস্থ ৩১ বছর বয়সি তারকা।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে এবার সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলছেন। অরেঞ্জ আর্মিদের হয়ে শেষ দুই ম্যাচেই মাঠে নামার সুযোগ পেয়েছেন সাকিব। প্রথম ম্যাচে ব্যাটিংয়ের সুযোগ না পেলেও বল হাতে ২ উইকেট নিয়ে দলের জয়ে ভূমিকা রেখেছেন তিনি। এরপর মুস্তাফিজুর রহমানদের মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে শ্বাসরুদ্ধকর জয়ে বল হাতে ১ উইকেটের সঙ্গে ব্যাট হাতে ১২ রান করেন সাকিব।

তথ্যসূত্র: পিটিআই কলকাতা