দখলবাজদের হামলায় দলিত সম্প্রদায়

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটের চিতলমারীতে জবরদখলবাজদের হামলায় দলিত সম্প্রদায়ের ৪ ব্যক্তি আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে গুরুতর আহত সুশান্ত বৈরাগী (৬০) ও তার স্ত্রী নীলিমা বৈরাগীকে (৫৫) চিতলমারী উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তীব্র খাবার পানির সংকট মেটাতে চাঁদা তুলে টিউবওয়েল বসাতে গিয়ে দলিত সম্প্রদায়ের এসব লোকেরা হামলার শিকার হন। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কুরমনি ওয়াপদা বেড়িবাধ এলাকার মুনি-ঋষি বস্তিতে এ ঘটনা ঘটে।

আহত সুশান্ত বৈরাগীর ছেলে সঞ্জয় বৈরাগী জানান, চিতলমারী বাজার সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৩৬/১ পোল্ডারের (কুরমনি মৌজায়) সরকারী জমিতে দলিত সম্প্রদায়ের ২৫/৩০টি পরিবারের দুই শতাধিক লোক দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে। সেখানে খাবার পানির তীব্র সংকট রয়েছে।

সংকট সমাধানে দলিত সম্প্রদায়ের ওই পরিবারগুলো চাঁদা তুলে সুশান্ত বৈরাগীর উঠানে মঙ্গলবার বেলা ১টার দিকে একটি টিউবওয়েল বসাতে যায়। এসময় একই এলাকার অনুকুল বসু, অনুপ বসু ও লিটন বড়ালের নেতৃত্বে ২০ থেকে ২৫ জন যুবক দলিত সম্প্রদায়ের ওইসব লোকদের উপর হামলা চালায়। এতে সুশান্ত বৈরাগী (৬০), তার স্ত্রী নীলিমা বৈরাগী (৫৫), ছেলে সঞ্জয় বৈরাগী (৩০) ও সঞ্জয়ের স্ত্রী (২৪) আহত হয়। সেই সাথে পন্ড হয়ে যায় পানির তীব্র সংকট মেটানোর জন্য টিউবয়েল বসানোর কাজ।

সঞ্জয় বৈরাগী আরো বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের ওই জায়গায় আমরা দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছি। তাছাড়া স্থানীয় জনপ্রতিনিধি আমাদের শান্তিপূর্ন বসবাসের জন্য ওই জায়গার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সাথে কথাও বলেছেন। আমাদের পক্ষে বরাদ্দ দেওয়ার জন্য স্থানীয় এমপি শেখ হেলাল উদ্দীন (১২২ টি পরিবারের জন্য) বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডকে চিঠি দিয়েছেন। তা সত্ত্বেও স্থানীয় জবরদখলবাজ চক্রটি আমাদেরকে উচ্ছেদ করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ওই জায়গা নিজেদের ভোগ দখলে নেয়ার পাঁয়তারা চালাচ্ছে।

এবিষয়ে অনুকুল বসু  জানান, সব জমি আমাদের পূর্ব পুরুষদের। তার নেতৃত্বে হামলার অভিযোগটি ঠিক না বলে তিনি দাবী করেন।

চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অনুকুল সরকার জানান, হামলার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দলিত সম্প্রদায়ের লোকজন মারপিটের শিকার হয়েছেন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রিন্স, ঢাকা