বা:কৃ:বি কোটা সংস্কার দাবিতে রেলপথ অবরোধ

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে “বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়” শিক্ষার্থীরা ক্লাশ/পরীক্ষা বর্জন করে আট ঘন্টা রেলপথ অবরোধ করে রাখেন।

এ সময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেন-বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় বৈষম্যের কোনা ঠাঁই হতে পারেনা। কোটা পদ্ধতির কারণে প্রকৃত মেধাবীরা সরকারি চাকরি হতে বঞ্চিত হচ্ছে আর অন্যদিকে মেধাশূন্যরা সরকারের বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ সেক্টর গুলোতে প্রবেশ করছে।

গত সোমবার (৯ এপ্রিল) সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে”বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়” শিক্ষার্থীরা সকাল ১১টা হতে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত, দীর্ঘ ৮ ঘন্টা রেলপথ অবরোধ করে রাখেন।পরবর্তীতে সন্ধ্যায় ‘সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী’ ওবাইদুল কাদের সাথে কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রতিনিধিদলের সাক্ষ্যাতে কোটার যৌক্তিক সংস্কারের আশ্বাসে ৭মে পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করার ঘোষণা দেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।এ সংবাদ অবরোধ তুলে নিলে আবারও ট্রেন চলাচল শুরু হয়।

ময়মনসিংহের রেলওয়ে স্টেশন ইনচার্জ জহিরুল হক বলেন-শিক্ষার্থীদের অবরোধের মুখে সোমবার (৯ এপ্রিল) বেলা ১১টায় ময়মনসিংহ স্টেশন থেকে ঢাকাগামী বলাকা এক্সপ্রেস ট্রেনটি ছেড়ে যেতে পারেনি।একই কারণে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা অগ্নিবীণা ট্রেনটি গফরগাঁও ও মহুয়া ট্রেনটি ফাতেমা নগর স্টেশনে আটকা পড়ে। এরপর থেকে এই লাইনে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকে। সন্ধ্যা ৭টায় অবরোধ তুলে নিলে আবার রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে সারা দেশ ব্যাপী চলছিল সরকারি চাকরিতে পোষ্য কোটা, মুক্তিযোদ্ধা কোটা, প্রতিবন্ধী কোটা, উপ-জাতি কোটা,মহিলা কোটাসহ মোট ৫৬% কোটার পরিবর্তে সংস্কার করে ১০% কোটা রেখে মেধার ভিত্তিতে সরকারি চাকুরিতে নিয়োগদানের জন্য সরকারি চাকুরি প্রার্থীদের আন্দোলন।

সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর রোববার পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলার পর দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামে।কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে গিয়ে শিক্ষার্থীদের রেললাইনের ওপর দাঁড়িয়ে, বসে থাকতে দেখা গেছে।

প্রিন্স, ঢাকা