ঢাবি উপাচার্যের বাসভবনের ব্যাপক ভাংচুর

নিউজ ডেস্ক: কোটা সংস্কারের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগে রাজপথ অবরোধকারী শিক্ষার্থীদের পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়ে তুলে দেওয়ার পর রাতে আন্দোলনকারীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলা চালায়।

এ সময় তারা উপাচার্যের বাসভবনের ভেতরে ব্যাপক ভাংচুর করে। এছাড়া তারা বাসভবনের বাইরে থাকা ভাঙা আসবাবপত্র জড়ো করে তাতে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং সেখান থাকা একটি গাড়িতেও আগুন দেয়।

এর আগে কোটা সংস্কারের দাবিতে শাহবাগে সড়ক অবরোধকারী শিক্ষার্থীদের কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়ে তুলে দেয় পুলিশ। লাঠিপেটায় ছত্রভঙ্গ শিক্ষার্থীরা রাত সাড়ে ৮টার দিকে আবারও রাস্তায় নামলে তাদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। আন্দোলনকারীরা সড়কে আগুন ধরিয়ে বাধা সৃষ্টি করে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল ছোড়ে। তাদের দমাতে মুহুর্মুহু কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট ছোড়ে পুলিশ। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের শতাধিক আহত হন। সেখান থেকেই আন্দোলনকারীরা একপর্যায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবন গিয়ে ভাংচুর করে।

এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে আন্দোলনকারী কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। অবশ্য এর আগে পুলিশের ‘হামলার প্রতিবাদে’ সোমবার সারাদেশে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট ডেকেছিলেন আন্দোলনকারীরা।

এদিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সোমবার আলোচনায় বসার কথা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের। রোববার রাতে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক একথা জানান।

প্রসঙ্গত, সরকারি চাকরির ৫৬ শতাংশ বিভিন্ন কোটার প্রার্থীদের জন্য সংরক্ষিত। কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে গত কয়েক বছর ধরে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রার্থীরা। আন্দোলনকারীদের দাবি, ১০ শতাংশের বেশি কোটায় নিয়োগ দেওয়া যাবে না। গত ফেব্রুয়ারি থেকে টানা আন্দোলন চললেও রোববার তা সহিংস রূপ নেয়।