কোটা সংস্কার দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ

রাবি প্রতিনিধি: কোটা সংস্কার করে ১০ শতাংশে কমিয়ে আনাসহ পাঁচদফা দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে ঢাকা- রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে কোটা সংস্কারের ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেয় তারা। সোমবার সকাল থেকে শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচি শুরু করে। প্রায় দুই সহস্রাধিক শিক্ষার্থী এতে অংশ নেয়।

আন্দোলনকারীদের অন্য দাবিগুলো হলো-কোটা সংস্কার করে ১০ শতাংশে নামিয়ে আনা, কোটার শূন্য পদগুলোতে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ, চাকরি পরীক্ষায় কোটা সুবিধা একবারের বেশি নয়, কোটায় বিশেষ নিয়োগ বন্ধ এবং চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা অভিন্ন করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানা যায়, সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় শিক্ষার্থীরা ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলায় কোটা বৈষম্যের ঠাঁই নাই, ‘কোটা ব্যবস্থার সংস্কার চাই’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন। এরপরই শিক্ষার্থীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের দিকে এগিয়ে যায়। প্রধান ফটক থেকে জোহা চত্বর পর্যন্ত সড়কে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নেয়। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আন্দোলনকারীরা অবস্থান করছিল।

ক্লাস বর্জন করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসগুলো ক্যাম্পাস ছেড়ে যায়নি। বর্তমানে ক্যাম্পাসে উত্তেজিত পরিবেশ বিরাজ করছে।

এর আগে গতকাল রাত দেড়টার দিকে আবারও ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। জানা যায়, কোটা সংস্কার আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে এমন গুজবে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে শিক্ষার্থীরা। বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই। কোটা প্রথার স্থান নাই। শেখ হাসিনার বাংলায় কোটা প্রথার স্থান নাই এরকম নানা স্লোগান শুহেলের শিক্ষার্থীরা হলের সামনে জমায়েত হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিনোদপুর গেট হয়ে রাবি প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে কোটা সংস্কারের সমন্বয়ক রাবি শাখার মাসুদ মুন্নাফ বলেন, আমরা একটা খবর পেয়েছিলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক বন্ধু নিহত হয়েছে। নিশ্চিত হওয়ার আগেই রাবি শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে বের হয়ে পড়ে। তারা স্বতঃস্ফুতভাবে আন্দোনে বের হয়ে পড়ে তাদের দমিয়ে রাখা যায় নি।

উল্লেখ্য, রবিবার কোটা সংস্কারে দাবিতে শিক্ষার্থীরা ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক বিকেল ৪টা থেকে সাড়ে ৮টা পর্যন্ত অবরোধ করে রেখেছিলো।