বাসে পেট্রোল বোমা হামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে খালেদা জিয়াকে

নিউজ ডেস্ক: কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বাসে পেট্রোল বোমা হামলা চালিয়ে আটজনকে হত্যার মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে প্রোটেকশন ওয়ারেন্টে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

আজ রোববার দুপুরে কুমিল্লা পাঁচ নম্বর আমলি আদালতের বিচারক কুমিল্লার অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাইন বিল্লাহ এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে আগামী ১০ এপ্রিল খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। কুমিল্লার কোর্ট ইন্সপেক্টর সুব্রত ব্যানার্জী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়াকে কারাগারে নেওয়া হয়। গত ১২ মার্চ এই মামলায় বিএনপি নেত্রীকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে ২৮ মার্চ তাকে হাজির করতে প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট বা হাজিরা পরোয়ানা জারি করেন কুমিল্লার আদালতের বিচারক মুস্তাইন বিল্লাহ। সেদিন বিএনপি নেত্রীকে আদালতে হাজির না করায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারা কর্তৃপক্ষকে কারণ দর্শাতে বলেন কুমিল্লা পাঁচ নম্বর আমলি আদালতের বিচারক কাজী আরাফাত।

বিএনপি নেত্রীকে সেদিন হাজির না করায় তার হাজিরা পরোয়ানা প্রত্যাহার ও জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হয়নি। এর পর ৮ এপ্রিল এই দুই আবেদনের ওপর শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেন বিচারক।

২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ভোররাতে ২০ দলীয় জোটের অবরোধের সময় চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুরে একটি বাসে পেট্রল বোমা ছুঁড়ে মারে দুর্বৃত্তরা। এতে আটজন যাত্রী দগ্ধ হয়ে মারা যান এবং আহত হন ২০ জন।

এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নুরুজ্জামান বাদি হয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ বিএনপির শীর্ষস্থানীয় ছয়জন নেতাকে হুকুমের আসামি করে ৭৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। ৭৭ জন আসামির মধ্যে তিনজন মারা যান। পাঁচজনকে চার্জশিটকে থেকে বাদ দেওয়া হয়।

খালেদা জিয়াসহ অপর ৬৯ জনের বিরুদ্ধে কুমিল্লা আদালতে তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পরিদর্শক ফিরোজ হোসেন চার্জশিট দাখিল করেন। আদালতে ২১ জন উপস্থিত থাকায় খালেদা জিয়াসহ অনুপস্থিত অপর ৪৮জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিলের নির্দেশ দেন। এ মামলার পরবর্তী তারিখ ২৪ এপ্রিল।