রাবি শিক্ষার্থীকে বেধড়ক পেটাল রামেক ছাত্রলীগ নেতা

রাবি প্রতিনিধি: পূর্ব শত্রুতার জেরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষাথীকে বেধড়ক পিটিয়েছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। আজ মঙ্গলবার (৩ এপ্রিল) দুপুর ২টার দিকে রাজশাহী নগরীর বন্ধগেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার কামাল হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। তাঁর বাড়ি নেত্রকোনা জেলায়।

ভুক্তভোগী কামালের দাবি, মারধরকারীদের মধ্যে একজন হলেন- রামেক শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান সাজু।তার বাড়িও নেত্রকোনায়। পারিবারিক শত্রুতার জের ধরে সাজু ওরফে সাজু বাঙালী ৫-৬জন যুবককে সঙ্গে নিয়ে কামালকে মারপিট করেন।

ভুক্তভোগী কামাল হোসেন জানান, কয়েকদিন থেকে তার মাথা ব্যাথা করছিল। তাই তিনি মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে চড়ে রামেকে চিকিৎসা নিতে যাচ্ছিলেন। দুপুর ২টার দিকে বাস থেকে নগরীর লক্ষীপুর বাসস্টান্ডে নামেন তিনি। এসময় রামেক শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজু বাঙালীসহ ৫-৬ জন যুবক তাকে জোর করে অটোতে তুলে নেয়। তারা কামালকে অটোতে করে লক্ষীপুরের বন্ধগেট এলাকার এক ছাত্রাবাসে নিয়ে যায়।

সেখানে তারা কামালকে রড ও পাইপ দিয়ে বেধড়ক মারপিট করে। এক পর্যায়ে কামালকে ব্লকমেইল করার জন্য তার শার্ট ও প্যান্ট খুলে উলঙ্গ করে ছবি তোলেন মারধরকারীরা। অনৈতিক সম্পর্ক করতে গিয়েছে এই মর্মে কামালের কাছ থেকে জবানবন্দি রেকর্ড করেন তারা। এসময় কামালের কাছে থাকা আড়াই হাজার টাকা এবং মোবাইল ফোন কেড়ে নেয় মারধরকারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘খবর পেয়ে আমি সঙ্গে সঙ্গেই বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে কামালকে দেখতে যাই। কামালের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারি- মারধরকারী ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আরিফের সঙ্গে তাদের পারিবারিক দ্ব›দ্ব রয়েছে। পারিবারিক দ্বন্দ্বের কারণেই কামালকে মারধর করা হয়েছে। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখবো। তারপর দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ বিষয়ে জানতে সাজু বাঙ্গালীর মুঠোফোনে সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি মারধরের বিষয়ে কিছু বলতে পারবে না বলে জানান।

প্রিন্স, ঢাকা