কারাগারে ছাত্রদল নেতার মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক : ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ও তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকির হোসেন মিলন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে মারা গেছেন। গতকাল সোমবার সকালে কারারক্ষীরা অসুস্থ মিলনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। অবশ্য পরিবার ও বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, পুলিশি রিমান্ডে নির্যাতনে মিলনের মৃত্যু হয়েছে। শাহবাগ থানার একটি মামলায় গত শনিবার তিন দিনের রিমান্ড শেষে পুলিশ তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়।

পুলিশ ও স্বজনরা জানান, গত ৬ মার্চ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে পুলিশ মিলনসহ কয়েকজনকে আটক করে। পরের দিন শাহবাগ থানায় ভাংচুরের একটি মামলায় তাকে আদালতে হাজির করলে আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পুলিশ রিমান্ড শেষে গত রোববার আদালতে হাজির করলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর একদিন পরই মারা গেলেন মিলন।

ঢাকা মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই বাচ্চু মিয়া জানান, মিলন কেরানীগঞ্জে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ছিলেন। গতকাল সকালে তিনি সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে কারারক্ষীরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মিলনের মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে।

অবশ্য মিলনের চাচা জিএম অলিউল্লাহ দাবি করেন, গত রোববার আদালতে হাজিরার সময়ে মিলন তাদের জানিয়েছিলেন, রিমান্ডে তাকে নির্যাতন করা হয়েছে। বেঁচে থাকবেন কি-না তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছিলেন।

স্বজনরা জানান, মিলন চার ভাইবোনের মধ্যে সবার বড়। তাদের গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরে।

এদিকে জাকির হোসেন মিলনের মৃত্যুতে এক বিবৃতিতে শোক প্রকাশ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, রিমান্ডে থাকা অবস্থায় পুলিশের নির্মম নির্যাতনে গুরুতর আহত মিলনকে কারাগারে চিকিৎসা না দিয়ে এভাবে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হয়েছে।

গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, একটানা তিন দিন রিমান্ডে নিয়ে মিলনের ওপর ভয়াবহ অমানবিক নির্যাতন চালানোর পর মৃতপ্রায় অবস্থায় তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। মুমূর্ষু অবস্থায় বিনা চিকিৎসায় গতকাল ভোরে মিলনের মর্মান্তিক ও হৃদয়বিদারক মৃত্যু হয়।

পুলিশি রিমান্ডে নির্যাতনে কারাগারে ছাত্রদল নেতা মিলনের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করে ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী। এ ছাড়া বিএনপির বিভিন্ন নেতারা মিলনের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন।