নিউ ইয়র্কে একুশ পালন

নিউজ ডেস্ক : একুশে ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষা দিবস পালনের মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে যাত্রা শুরু করেছে বাংলা বুক ক্লাব ‘পাঠকের পাতা’।

স্থানীয় সময় শনিবার এ উপলক্ষে আয়োজন করা হয় বই ব্যবচ্ছেদ ও একুশের কবিতাপাঠ।

ভাষার মাসের তাৎপর্যকে বিবেচনায় রেখে এ মাসের জন্য নির্বাচন করা হয় ওবায়েদুল্লাহ মামুন সম্পাদিত গ্রন্থ ‘একুশের কথা একুশের চেতনা’। এই গ্রন্থে সন্নিবেশিত হয়েছে ২১ জন ভাষা সৈনিকের ২১টি প্রবন্ধ।

অনুষ্ঠানে মূল আলোচক ছিলেন কবি ও প্রাবন্ধিক কাজী জহিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, “বাংলা ভাষার দাবিকে যারা যৌক্তিক আন্দোলনে রূপ দিয়েছিলেন, সেইসব ভাষা সৈনিকদের কলম থেকে বিভিন্ন সময়ে বেরিয়ে এসেছে ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিকথা, তাৎপর্যপূর্ণ প্রবন্ধ-নিবন্ধ। এমন ২১ জন ভাষা সৈনিকের লেখা একুশটি রচনা এই গ্রন্থে সন্নিবেশিত হয়েছে।”

উপস্থিত পাঠকদের মধ্য থেকে বক্তব্য দেন মোরশেদুল আলম, ফাহিম রেজা নূর, আবদুল্লাহ জাহিদ ও মুক্তি জহির।

মোরশেদুল আলম নিউ ইয়র্ক সিটির মূল স্রোতধারার ভেতরে বাংলা ভাষার একটি বুক ক্লাবের সরব অস্তিত্ব দেখে আনন্দ প্রকাশ করেন।

ফাহিম রেজা নূর পাঠকের পাতার কর্মকাণ্ডের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে বলেন, “এই আয়োজন আমাদেরকে নিয়মিত ভালো ভালো বাংলা বই পড়তে উৎসাহ জোগাবে যা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখে।”

আবদুল্লাহ জাহিদ ‘একুশের কথা একুশের চেতনা’ বইটির সম্পাদক ওবায়েদুল্লাহ মামুনকে এই গ্রন্থটি সম্পাদনা করার জন্য বিশেষ ধন্যবাদ জানান।

মুক্তি জহির এ গ্রন্থের একমাত্র নারী লেখিকা সুফিয়া আহমেদের রচনাটির সূত্র টেনে বলেন, “তার প্রবন্ধটি আমাদের জানিয়ে দেয় যে ভাষা আন্দোলনে বেশ ক’জন নারী অসামান্য অবদান রাখেন, তাঁরা হলেন- লায়লা সামাদ, শামসুন নাহার, শাফিয়া খাতুন,  সারাহ তৈফুর ও রওশন আরা বাচ্চু। এই নামগুলো জেনে একজন নারী হিসেবে আমি অনুপ্রাণিত বোধ করেছি।”

আলোচনার শেষ বক্তা হিসেবে ‘একুশের কথা একুশের চেতনা’ গ্রন্থের সম্পাদক ওবায়েদুল্লাহ মামুন উত্থাপিত প্রশ্নগুলোর জবাব দেন। তিনি বলেন, “এই গ্রন্থে একুশজন ভাষা সৈনিকের রচনা সংকলিত হয়েছে। লেখক নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে তাঁদেরকে, যারা আজ অবধি বা তাঁদের জীবনের শেষ দিন অবধি একুশের চেতনাকে ধারণ করেছেন, লালন করেছেন।”

বই ব্যবচ্ছেদ পর্ব শেষে একুশের কবিতা আবৃত্তি করেন নজরুল কবীর, পারভীন সুলতানা, তাহরীনা প্রীতি ও শুক্লা রায়। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রাজিয়া নাজমী।

মার্চ মাসের জন্য নির্বাচন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’। সদস্যরা বইটি কুইন্স লাইব্রেরির হলিস শাখা থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন।

আগামী ২৪ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে ‘পাঠকের পাতা’র দ্বিতীয় বই ব্যবচ্ছেদ। বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র ওপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ওবায়েদুল্লাহ মামুন। ২৪ মার্চের অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার কবিতা পাঠ করবেন বাচিক শিল্পীরা।