অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় ৩২ ধারা বাধা নয়: আইনমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করতে গিয়ে কোনো সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩২ ধারায় ‘গুপ্তচরবৃত্তি’র মামলা হলে সেই সাংবাদিকের পক্ষে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক নিজেই আদালতে মামলা লড়বেন বলে নিশ্চয়তা দিয়েছেন।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর রিপোর্টাস ইউনিটিতে আইন সাংবাদিকদের সংগঠন ল রিপোর্টার্স ফোরাম (এলআরএফ) কর্তৃক আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এ নিশ্চয়তার কথা বলেন।

আনিসুল হক বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩২ ধারা সাংবাদিকদের জন্য করা হয়নি। তাহলে কেন আপনারা এটাকে নিজেদের ঘাড়ে নিচ্ছেন? আজ থেকে যতদিন আমি বেঁচে থাকি ততদিনের মধ্যে কোনো সাংবাদিকের বিরুদ্ধে এই ধারার অধীনে মামলা হলে বিনা ফি’তে তার পক্ষে আমি আদালতে দাঁড়াবো (মামলা পরিচালনা)।

তিনি বলেন, ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করে যদি গুপ্তচরবৃত্তি হয় সেক্ষেত্রেই তবে এই ধারা প্রযোজ্য। যেমন, রিজার্ভ ব্যাংকের টাকা ডিচিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে লুট করা হয়েছে। এক্ষেত্রে কি আমরা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ব্যবহার করবো না? এসবক্ষেত্রে বিচারের জন্যইতো এই ধারা রাখা হয়েছে।

আনিসুল হক বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সকল অপরাধ দণ্ডবিধি আইনে রয়েছে। তবে ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে ওই অপরাধগুলো হলে তার বিচারের সুযোগ দণ্ডবিধিতে ছিলো। এখন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে সেইসব অপরাধের বিচার হবে।

আইনে নতুন উপধারা যুক্ত হবে বলেও জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী।