রাবির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতির পদত্যাগ

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে পড়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক নাসিমা জামান পদত্যাগ করেছেন। রবিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের বরাবর ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি চেয়ে পদত্যাগ পত্র জমা জমা দিয়েছেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান এবং বিভাগের শিক্ষক ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক রুহুল আমিন পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অধ্যাপক রুহুল আমিন বলেন, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে রবিবার দুপুরে অধ্যাপক নাসিমা জামান উপাচার্য বরাবর সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি চেয়ে পদত্যাগ পত্র জমা দেন। তবে তিনি আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান জানান, আজকের (রোববার) আন্দোলনের মুখে পড়ে তিনি পদত্যাগপত্র জমা দেননি, তবে ওই বিভাগের সভাপতি মূলত আন্দোলন শুরু হওয়ার আগেই পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। কিন্তু তিনি বিষয়টি গোপন রেখেছিলেন। পরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন দাবি করলে বিষয়টি অন্যদিকে মোড় নেয়।

আরও জানা যায়, রোববার বেলা ১১টার দিকে বিভাগের একাংশ শিক্ষকরা সভাপতির পদত্যাগের দাবিতে বিভাগের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেন। এর কিছুক্ষণ পরই শিক্ষকদের আন্দোলনের সাথে সংহতি জানিয়ে আন্দোলন শুরু করেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

একপর্যায়ে অধ্যাপক নাসিমা জামানকে সেমিনার কক্ষে আবদ্ধ করে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে বেলা দেড়টার প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদেরকে পদত্যাগের বিষয় নিশ্চিত করলে তারা আন্দোলন কর্মসূচী স্থগিত করেন।

বিভাগসূত্রে জানা যায়, গত বছরের ২৭ জুলাই একই বিভাগের সহকারি অধ্যাপক রুখসানা পারভীনের বিরুদ্ধে শ্রেনিকক্ষে ও শ্রেনিকক্ষের বাইরে বিভাগের শিক্ষকদের নামে আপত্তিকর মন্তব্যের অভিযোগ তুলে সভাপতি নাসিমার কাছে অভিাযোগ করেন বিভাগের ১১জন শিক্ষক।

এরপর শিক্ষক রুখসানা পারভীন সভাপতির উপস্থিতিতে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের নিকট ওই ১১জন শিক্ষকের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন। এতে যৌন হয়রানি, অর্থ আত্মসাৎসহ নানা অভিযোগ আনা হয়। রুখসানা পারভীনকে মদদ দেওয়ার অভিযোগে উপাচার্য বরাবর অনাস্থা জানিয়ে লিখিত অভিযোগ করেন ওই ১১ শিক্ষক। এরপর থেকে ওই বিভাগের ক্লাস পরীক্ষা স্থগিত রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৭৫তম সিন্ডিকেট সভায় উপাচার্য তাকে পদত্যাগের জন্য অনুরোধ করবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়। এ সংক্রান্ত চলমান ঘটনাগুলোর কারণে গত বছরের মাঝামাঝি থেকে বিভাগে অচল অবস্থা বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগের সভাপতি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্যের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা ফোন রিসিভ করেননি।