হিজড়া জনগোষ্ঠীকে স্বীকৃতি দিয়েছে সরকার: নূর

স্টাফ রিপোর্টার: সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, হিজড়া জনগোষ্ঠীকে বর্তমান সরকার তৃতীয় লিঙ্গের স্বীকৃতি দিয়েছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তারা ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। হিজড়া জনগোষ্ঠীর শারীরিক ত্রুটি, ভিন্নতা ও বৈচিত্র্যের জন্য তারা দায়ী নয়; এটি সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত। এটির ওপর তাদের কোনো হাত নেই।

কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে আমরা এ সত্য ভুলে যাই। আমাদের এ বৈচিত্র্যকে স্বাভাবিক হিসেবে গ্রহণ করতে হবে। আমাদের মানবিক হতে হবে, তাদেরকে কাছে টানতে হবে।

মন্ত্রী আজ রাজধানীর বাংলাদেশ মহিলা সমিতি মিলনায়তনে বাংলাদেশের হিজড়া ও লৈঙ্গিক বৈচিত্র্যময় জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য, জীবনমান উন্নয়ন ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা বন্ধু‘র সাংস্কৃতিক সংগঠন সত্তার পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউএসএইড(USAID) বাংলাদেশের ডেমোক্রেসি ও গভর্নেন্স বিষয়ক ডেপুটি অফিস ডিরেক্টর স্লাভিকা রাডোসেভিক (Slavica Radosevic)।

প্রধান অতিথি বলেন, আইন হওয়াটাই যথেষ্ট নয়, এর প্রয়োগ জরুরি। আমাদের দেশে অনেক আইন আছে যেগুলোকে আমরা ঠিকমত মানি না। আইনের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। আইন মেনে চলার মানসিকতা গড়তে হবে। অন্যথায় নতুন নতুন আইন তৈরি সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য কোনো সুফল বয়ে আনবে না।

হিজড়া সম্প্রদায়কে নিজেদের অধিকার ও আত্মসম্মানের প্রতি আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, হিজড়াদের অধিকার নিয়ে কথা বলার দায়িত্ব শুধু তাদের নয়, এটি আমাদের সকলের নৈতিক দায়িত্ব। তাদের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসাসহ সকল মৌলিক অধিকার নিশ্চিতকরণে রাষ্ট্রের পাশাপাশি আমাদের সকলের দায়িত্ব রয়েছে। তিনি আরো বলেন, হিজড়া সম্প্রদায়কে নিয়ে কাজ করা কোনো সংগঠন যদি ভবিষ্যতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের জন্য আর্থিক সহযোগিতা চায়, সেক্ষেত্রে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করবে। তাছাড়া শিল্পকলা একাডেমিতে জাতীয় পর্যায়ের অনুষ্ঠানে হিজড়াদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির চেয়ারপারসন আনিসুল ইসলাম হিরু।