একটি ব্রিজের অভাবে ২০ হাজার মানুষের দুর্ভোগ

চাটমোহর প্রতিনিধি: পাবনার চাটমোহরে একটি ব্রিজের অভাবে কাটা নদীর দুই পাড়ের দুই ইউনিয়নের ২০ হাজার মানুষ দুর্ভোগ রয়েছে। বাঁশের চারাটের সাঁকো দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে হচ্ছে শতশত মানুষকে। মাত্র ২ কিলোমিটারের পথ যেতে গ্রামবাসীদের ঘুরতে হচ্ছে ১৫ কিলোমিটার। এতে অর্থ ও সময় দুই-ই নষ্ট হওয়ায় চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে ওইসব গ্রামবাসীকে। এলাকাবাসী নিজেরাই বাঁশ-বাতার সাঁকো নির্মাণ করে পারাপার হচ্ছে নদীতে।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার ছাইকোলা ও হান্ডিয়াল ইউনিয়নের মধ্য যোগাযোগ স্থাপনকারী সড়কের মাঝে হান্ডিয়ালের কাটা নদীতে সংযোগ সেতু না থাকায় নদীর পশ্চিম পাড়ের ছাইকোলা ইউনিয়ন ও পূর্ব পাড়ের হান্ডিয়াল ইউনিয়নের মধ্যে মাত্র দুই কিলোমিটারের পথ পাড়ি দিতে হচ্ছে ১৫ কিলোমিটার ঘুরে। এতে এলাকাবাসীর অর্থ ও সময় দুইই নষ্ট হচ্ছে।

এলাকাবাসী নদীটির উপর যোগাযোগের জন্য বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করেছে। কিন্তু সাঁকোটি প্রয়োজনীয় সংস্কার না করায় রোদ-বৃষ্টিতে ভিজে পচে নষ্ট হয়ে নড়বড়ে হয়ে গেছে।

তা ছাড়া কাটা নদীর পাড়েই মুনিয়াদীঘি কারিগরি কৃষি কলেজ ও পাকপাড়া সিনিয়র মাদ্রাসা অবস্থিত। শুধু গ্রামবাসীকেই নয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দুটির শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো পারাপার হতে হচ্ছে।

হান্ডিয়াল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কেএম জাকির হোসেন জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্যের কাছে আবেদন করা ছাড়াও বিষয়টি উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটিতে উপস্থাপন করা হয়েছে। এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

চাটমোহর উপজেলা প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম বলেন, সেতু নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।