বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মোট ১০ লাখ ৮ হাজার ৫২৫ জন কর্মীর কর্মসংস্থান হয়েছে: নুরুল ইসলাম

২০১৭ সালে বাংলাদেশ হতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মোট ১০ লাখ ৮ হাজার ৫২৫ জন কর্মীর বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে। যা ২০১৬ সালের তুলনায় ৩৩ শতাংশ বেশি। ২০১৮ সালে ১২ লাখ কর্মী বিদেশে প্রেরণ করার পরিকল্পনা রয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি আজ প্রবাসী কল্যাণ ভবনে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাফল্যগাঁথা-২০১৭ উপলক্ষে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী জানান, বর্তমানে ৬টি ইনস্টিটিউট অভ্ মেরিন টেকনোলজি ও ৬৪টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রসহ মোট ৭০টি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ক্রমান্বয়ে অদক্ষ কর্মী প্রেরণ কমিয়ে আধাদক্ষ ও দক্ষ কর্মী প্রেরণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিটি উপজেলায় ১টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপনের ১ম পর্যায়ে ৪০টি উপজেলায় ৪০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে শুরু করা হয়েছে। ২য় পর্যায়ে আরো ৫০টি উপজেলায় ৫০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বিএমইটি’র প্রশিক্ষণ সক্ষমতা বর্তমানের দেড় লাখ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় পাঁচ লাখে উন্নীত হবে।

মন্ত্রী বলেন, বিদেশ গমনেচ্ছুক কর্মীদের সেবা সহজীকরণ ও বিকেন্দ্রীকরণের অংশ হিসেবে বর্তমানে ২৯টি জেলার জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসে বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মীদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট কার্যক্রম বিকেন্দ্রীকরণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে তা আরো সম্প্রসারিত হবে। এ পর্যন্ত ২ হাজার ৩৪৩ জন প্রবাসী কর্মীর মেধাবী সন্তানকে ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। বিদেশগামী এ প্রবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের কল্যাণার্থে ও সমস্যা সমাধানে ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে ডিজিটাল হেল্প ডেস্ক (হট লাইন +৮৮ ০১৭৮৪ ৩৩৩ ৩৩৩, +৮৮ ০১৭৯৪ ৩৩৩ ৩৩৩ ও +৮৮ ০২-৯৩৩৪৮৮৮) চালু করা হয়েছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ২০১৮ সালের কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ২০১৮ সালে ১২ লাখ কর্মী প্রেরণের পরিকল্পনা রয়েছে। তবে বর্তমান ধারা অব্যাহত রাখাসহ আরো দক্ষ ও প্রশিক্ষিত কর্মী প্রেরণের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। এছাড়া বিদেশ ফেরত কর্মীদের ইউনিয়ন ভিত্তিক ডাটাবেজ প্রণয়নের পরিকল্পনা রয়েছে।

এ সময় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ আমিনুল ইসলামসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।