আমদানি রফতানির বন্ধের একদিন পর আবারো সচল হয়ে উঠেছে স্থলবন্দর বেনাপোল

বেনাপোল প্রতিনিধি: আমদানি রফতানির বন্ধের একদিন পর আবারো সচল হয়ে উঠেছে দেশের সর্ব বৃহত স্থলবন্দর বেনাপোল। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে পুরোদমে শুরু হয়েছে দু দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বানিজ্য। বন্দরে ফিরে এসেছে কর্মচাঞ্চল্য।

ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে কাস্টমস কর্মকর্তাদের হয়রানির প্রতিবাদে সোমবার সকাল থেকে সেদেশের পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্ট স্টাফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অনির্দিস্টকালের ধর্ঘমট’র ডাক দেয়।

আমদানি-রফতানি শুরু হওয়ায় বেনাপোল বন্দর এলাকায় সৃস্টি হযেছে ভয়াবহ যানজট। ফলে আমদানি পণ্যের দীর্ঘ লাইনের কারনে চরম ভোগাšিততে পড়েছে পথচারীরা।

পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্ট স্টাফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী জানান, পেট্রাপোল কাস্টমস অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের হয়রানির প্রতিবাদে সোমবার সকাল থেকে আমদানি-রফতানি বানিজ্য বন্ধ করে দেয়া হয়।

সারাদিন কাস্টমস ও প্রশাসনের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেও সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। রাত নয়টায় পুনরায় বৈঠক করে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের দাবি মেনে নেওয়ায় অনির্দিস্টকালের ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

বেনাপোল কাস্টমস হাউসের ডেপুটি কমিশনার সাইদ আহমেদ রুবেল জানান, মঙ্গলবার সকাল থেকে দু‘দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বানিজ্য পুনরায় শুরু হয়েছে। তারা দ্রুুত পণ্য খালাশ করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

বেনাপোল স্থলবন্দরের পরিচালক আমিনুল ইসলাম জানান, সকাল থেকে দু দেশের মধ্যে আমদানি রফতানি বানিজ্য সচল হয়েছে। বন্দর থেকে দ্রুত পণ্য খালাসের জন্য সংশিষ্ট সবাইকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ভারতের পেট্রাপোল কাস্টমসের ঘুষ বাণিজ্যসহ বিভিন্ন অনিয়মের কারণে দীর্ঘদিন ধরে আমদানি রফতানি বানিজ্যে অচলাবস্থা বিরাজ করে আসছিল। বিষয়টি নিরসনে সেখানকার ব্যবসায়ীরা কাস্টমসকে অনুরোধ জানিয়ে আসছিল। কাস্টমস ব্যবসায়ীদের অভিযোগ পাত্তা না দেওয়ায় বাধ্য হয়ে গতকাল সোমবার থেকে তারা অনির্দিস্ট কালের ধর্মঘটের ডাক দেয়।

আজ সকাল থেকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ২০৩ ট্রাক মালামাল আমদানি হযেছে ভারত থেকে।

প্রিন্স, ঢাকা