অনির্দিষ্টকালের জন্য আমদানি রফতানি বনিজ্য বন্ধ

বেনাপোল প্রতিনিধি: বেনাপোাল বন্দর দিয়ে সোমবার সকাল থেকে অনির্দিস্টকালের জন্য দু দেশের মধ্যে আমদানি রফতানি বনিজ্য বন্ধ রযেছে। ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে কাস্টমসের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ এনে সেদেশের বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠন অনির্দিস্ট কালের এই ধর্মঘটের ডাক দেয়। তবে দু দেশের মাঝে পাসপোর্ট যাত্রীদের যাতায়াত স্বাভাবিক রয়েছে।

ভারতের প্রেটাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস স্টাফ এসোশিয়েশনের সাধারন সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তি জানান, আমদানি রফতানি বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ভারতের পেট্রাপোল কাস্টমসের ঘুষ বাণিজ্যসহ বিভিন্ন অনিয়মের কারণে দীর্ঘদিন ধরে বাণিজ্য ব্যহত হচ্ছিলো। বিষয়টি নিরসনে সেখানকার ব্যবসায়ীরা কাস্টমসকে অনুরোধ জানিয়ে আসছেন কিন্তু কাস্টমস ব্যবসায়ীদের অভিযোগ পাত্তা না দেওয়ায় বাধ্য হয়ে তারা ধর্মঘট ডাক দেয়। ধর্মঘটের কারনে বেনাপোল-পেট্রাপোল রুটে সব ধরনের পণ্যের আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ রয়েছে।

বেনাপোল কাস্টমস স্পেসাল গ্রুপের সুপারিনটেনডেন্ট গোলাম মুর্তজা জানান, ভারতীয় কাস্টমস ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে দ্বন্দের কারনে বেনাপোল বন্দর দিয়ে দু দেশের মাঝে আমদানি রফতানি বন্ধ রয়েছে।

বেনাপোল স্থলবন্দরের পরিচালক (প্রশাসন)আমিনুল ইসলাম জানান, বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকলেও বন্দরের অভ্যন্তরে পণ্য ওঠা-নামা, খালাশ স্বাভাবিক রয়েছে।

তিনি আরো জানান, এই বন্দর দিয়ে আমদানি বাণিজ্য বন্ধ থাকায় বেনাপোল ও পেট্রাপোল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় আটকা রয়েছে কয়েক হাজার পণ্যবাহী ট্রাক। তবে মাছ, পিয়াজ, ঝাল, পান সহ বিভিন্ন ধরনের পচনশীল পণ্য নস্ট হোয়ার উপক্রম হয়েছে।বিশষ করে বিভিন্নি শল্প কলকারখানা ও গার্মেন্টস শিল্পের কাচামাল আটকে থাকায় বিপাকে পড়েছে তারা । বিষয়টি দ্রুত সমাধান না করলে ব্যবসায়ীদের অর্থনৈতিক লোকসানের আশঙ্কা রয়েছে। বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন ১২ কোটি টাকার রাজস্ব আয় হয়ে থাকে সরকারের।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ও বন্দর ব্যবহারকারীদের সাথে দফায় দফায় বৈঠক চলছিল।

প্রিন্স, ঢাকা