বৃহত্তর ময়মনসিংহ রজত জয়ন্তী ও সাংস্কৃতিক উৎসব

ঢাকা প্রতিনিধি: বাংলাদেশে লোকজ সংস্কৃতির উর্বর ভূমি বৃহত্তর ময়মনসিংহে অতিদ্রুত আন্তর্জাতিক লোক সাংস্কৃতিক ইন্সটিটিউট স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে। এ ব্যাপারে প্রাথমিক ভাবে কিছু আলাপ আলোচনা ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। আমি মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার পর পরই হাওর অঞ্চলের বোরো ধান রক্ষার খবর নিতে তিনজন ডিসির সাথে টেলিফোনে কথা বলেছি। ভাটির ধান বাঁচলে বৃহত্তর ময়মনসিংহ বাঁচবে, বাংলাদেশ বাঁচবে। বৃহত্তর ময়মনসিংহের সন্তান হিসেবে এ অঞ্চলের প্রতি অবশ্যই আমার দায়িত্ব রয়েছে। সে দায়-ভার পালনে আমি সবসময় যথাযথ চেষ্টা করেছি এবং আগামীতেও করে যাবো।

আজ শুক্রবার ০৫ জানুয়ারী ২০১৮ সকাল ১০টায় ঢাকাস্থ শাহবাগ কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী শওকত ওসমান মিলনায়তনে বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামে আয়োজিত রজত জয়ন্তী ও সাংস্কৃতিক উৎসবের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে নব নিযুক্ত মাননীয় মন্ত্রী ও বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের সভাপতি জনাব মোস্তাফা জব্বার উপরোক্ত মন্তব্যগুলো করেন।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়ক (এজডিজি) জনাব আবুল কালাম আজাদ, বিশেষ অতিথি, কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান, চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশন এর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ফোরামের ৬টি জেলা শাখার সভাপতিবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব আবুল কালাম আজাদ বলেন- ময়মনসিংহ বিভাগসহ বৃহত্তর ময়মনসিংহ উন্নয়নে বর্তমান সরকার ব্যাপক কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। এ অঞ্চলের মানুষ খুব শিঘ্রই তার সুফল পেতে থাকবে।

রজত জয়ন্তী ও সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজক কমিটির আহবায়ক ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব মোঃ আব্দুস সামাদ মূল আলোচক হিসেবে তার বক্তব্যে তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের রজত জয়ন্তী উৎসবে বিগত দিনে ফোরামের অসংখ্য অর্জনের কথা তুলে ধরেন এবং এই উৎসব বাস্তবায়নে যারা সাহায্য ও সহযোগিতা করেছেন তাদেরকে ধন্যবাদ জানান।

স্বাগত বক্তব্যে ফোরামের মহাসচিব জনাব রাশেদুল হাসান শেলী বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম দীর্ঘ ২৫ বছরের পথ পরিক্রমায় যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে সংগঠনটিকে এগিয়ে নিয়ে এসেছেন তাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

রজত জয়ন্তী উৎসব উদ্বোধন উপলক্ষ্যে সকাল ৯টায় সুসজ্জিত বর্ণাঢ্য র‌্যালি শাহবাগ থেকে নগরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। আলোচনা সভার পর বৃহত্তর ময়মনসিংহের ৬টি জেলার শিশু-কিশোর-কিশোরী প্রতিযোগিদের নিয়ে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় এবং বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

উৎসবের দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হয় বিকাল ৪টায় । প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংস্কৃতিক বিষয়ক মাননীয় মন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জামান নূর এমপি, বিশেষ অতিথি ছিলেন- মির্জা আব্বাস এমপি, মাননীয় মন্ত্রী বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়, শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ম. হামিদ।

দুইদিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের প্রথম দিন শেষে মনোঙ্গ সংগীত সন্ধ্যা ও বৃহত্তর ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী গীতি-নৃত্যনাট্য মহুয়া পরিবেশিত হয়।