কড়া নিরাপত্তায় থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপন

নিউজ ডেস্ক: থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপনকে কেন্দ্র করে রাজধানীতে ছিল কড়া নিরাপত্তা। নিরাপত্তার জালে থেকেই নতুন বছর উদযাপন করলো ঢাকাবাসী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা ও হাতিরঝিলসহ কিছু এলাকায় সাধারণ মানুষের চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। ক্যাম্পাস সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বাদে কাউকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

এছাড়া ঢাকার অনেকগুলো সড়ক বন্ধ রাখা হয়েছিল গতকাল রাতে। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে অনেককেই। তল্লাশি চালানো হয়েছে রাজধানীর পাড়া মহল্লায় পর্যন্ত। পুলিশের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও অনেকেই বাসা বাড়ির ছাদে গিয়ে পটকা ও আতশবাজি ফুটিয়েছেন।

রাজধানী জুড়ে মোতায়েন ছিল পুলিশ ও র্যাব। তারা রাত ৮ টার পর থেকে নগরী নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দিয়েছিল। সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে রাত সোয়া নয়টার দিকে ব্যাপকসংখ্যক পুলিশ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা পরিদর্শনে যান ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা ঘুরে রোকেয়া হলের সামনে যান তিনি। ওই সড়ক ধরে নীলক্ষেতের দিকে বেরিয়ে যান কমিশনার।

এসময় পুলিশের উপস্থিতি দেখে শিক্ষার্থীরা হল থেকে বেরিয়ে আসেন। রোকেয়া হলের সামনেও কিছু ছাত্রী ঠাঁই দাঁড়িয়ে দেখছিলেন। এসময় কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া সেখানে দাঁড়িয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি ছাত্রীদের উদ্দেশে বলেন, নিরাপত্তা নিশ্চিত না হলে আনন্দ করা যায় না। তোমরা উত্সব কর। আমরা এখানে আছি, শুধু নিরাপত্তার জন্য।