স্মার্টফোন’ দুর্বার আকর্ষণে নেশা হয়ে উঠেছে

নিউজ ডেস্ক: হোয়াটসঅ্যাপ, নেটফ্লিক্সের দুর্বার আকর্ষণ যে কবে নেশা হয়ে উঠেছে, তা অনেকেই খেয়াল করেন না। কাজ কিংবা অকাজে, অফিস কিংবা বাড়িতে, দিনে বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে স্মার্টফোন ব্যবহার করটা আজকাল প্রায় স্বাভাবিক হয়ে দাঁড়িয়েছে। এক্ষেত্রে ‘নিয়মিত ব্যবহারকারী’ আর ‘নেশাগ্রস্ত’-দের মধ্যে ফারাকটা বজায় রাখা প্রায় অসম্ভব।

ক’ঘণ্টা ফোনে কাটাচ্ছেন, শুধু তার ওপরেই সেটা নির্ভর করে না। মিডিয়াসক্তি ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে: প্রথমে কৌতূহল, হয়ত কোনো নতুন ভিডিও গেম একবার খেলে দেখা। দ্বিতীয় পর্যায়ে হলো ‘এনজয়মেন্ট’ বা আনন্দ পাওয়া; তৃতীয় পর্যায়ে ‘হ্যাবিচুয়েশন’ বা অভ্যেস হয়ে যাওয়া। চতুর্থ পর্যায়ে অপব্যবহার, অর্থাৎ মাত্রাতিরিক্ত মিডিয়া ভোগ করা। আর শেষ পর্যায়ে হলো নেশা বা মিডিয়াসক্তি: তখন মানুষ তাদের বন্ধুবান্ধব বা অন্যান্য হবি অবহেলা করতে শুরু করে, এমনকি স্কুল-কলেজ বা অফিসেও যেতে চায় না। তখন সে সত্যিই নেশাখোর।

ঝুঁকি টিনেজারদেরই বেশি

জার্মান টিনেজাররা নাকি দিনে তিন থেকে চার ঘণ্টা অনলাইনে কাটায়, বলে একটি সাম্প্রতিক জরিপে প্রকাশ। তারা প্রধানত অনলাইনে যায় বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বা গান শুনতে। কিন্তু সারাক্ষণ ‘ডিজিট্যালি কনেক্টেড’ থাকার প্রচেষ্টা অস্বাভাবিক হয়ে দাঁড়াতে পারে। ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা কোনো ছবি বন্ধুবান্ধবরা ‘লাইক’ করল কিনা, সেটা জানার জন্য অপেক্ষা করা; এত যে ‘ফলোয়ার’ আছে, তারা হয়ত কোনো নতুন ছবি আপলোড হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে; অনেকে নাকি জিপ লক ব্যাগে করে শাওয়ারের নীচেও ফোন নিয়ে যায়। মিডিয়াসক্তির সঙ্গে অ্যালকহলে আসক্তির অনেক মিল আছে। দু’টোই ‘বিহেভিওরাল অ্যাডিকশন’ বা আচরণগত আসক্তি। কিন্তু মদ্যপান ছাড়া যতটা সহজ, অনলাইনের অভ্যেস ছাড়া তার চাইতে অনেক বেশি শক্ত – কেননা মিডিয়া তো সর্বত্র। মিডিয়ার ব্যবহার কমাতে গিয়ে ভুক্তভোগীরা দেখেছে যে, তাদের ‘উইথড্রয়াল সিম্পটম’ হচ্ছে: ঘাম হচ্ছে, মাথা ঘুরছে বা অকারণে মেজাজ খারাপ হচ্ছে।