রাবিতে রাকসু নির্বাচনের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (রাকসু) নির্বাচনের দাবিতে ধারাবহিক কর্মসূচীর অংশ হিসেবে মিছিলসহ গণসংযোগ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল ছাত্রজোট। রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের টুকিটাকি চত্বর ও শহীদুল্লাহ কলাভবন হয়ে দলীয় ট্রেন্ডে এসে একটি সংক্ষিপ্ত সামাবেশে মিলিত হয়।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট রাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন প্রধান তারেক এর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন রাবি সংসদের সভাপতি এ এম শাকিল হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি তাসবিরুল ইসলাম কিঞ্জল, বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর সহ-সাধারণ সম্পাদক রশিদ রফিক, শিপন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক সহ সম্পাদক রশিদ রফিক প্রমুখ।

সমাবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল ছাত্রজোটের বক্তারা বলেন, আচার্য, উপাচার্যসহ সাধারণ শিক্ষার্থীরা ছাত্র সংসদ নির্বাচনের যৌক্তিকতা বারবার বলে আসছে অথচ নির্বাচন কেন আটকে আছে আমরা জানতে চাই। শিক্ষার বাণিজ্যিকিকরণ, যৌন হয়রানি, অপহরনের মতো ঘটনো, ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের দখলবাজি কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরোপিত করা নিয়ম কানুন থাকত না যদি ছাত্র নির্বাচিত প্রতিনিধি থাকত।

এসময় বক্তারা আরো বলেন, রাকসু নির্বাচন নেই বলেই আজ ছাত্রদের সাথে পরামর্শ না করে বাসের ট্রিপ কমানো হচ্ছে শুধু বাসের ট্রিপই নয় বাসের সংখ্যাও কমানো হয়েছে। হলের ডাইনিংয়ের খাবারের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো দখলদারদের হাতে রয়েছে।

যেখানে তৃতীয় চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীর হলে সিট হয় না সেখানে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের সিট হচ্ছে। তারা শিক্ষার্থীদের অধিকার ক্ষুণ্ন করে রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা তাদের উদ্দেশ্য হাসিল করছে। আজ যদি রাকসু নির্বাচন থাকত তাহলে ছাত্রদের অধিকার নিয়ে কথা বলত। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক রাজনীতি ও শিক্ষক সমিতি নির্বাচনসহ সব ধরনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে অথচ ছাত্রদের কাছ থেকে অর্থ নেওয়া হচ্ছে রাকসু নির্বাচন দেওয়া হচ্ছে না।

গণসংযোগ কর্মসূচীর উদ্বোধন ঘোষনা করে তারা রাকসু নির্বাচনের দাবিতে অটল প্রগতিশীল ছাত্রজোট, সাংস্কতিক সংগঠনকে তারা ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান এবং আগামী ২৬ ডিসেম্বর পরবর্তী মিছিল এবং সমাবেশের তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

প্রিন্স, ঢাকা