মহিউদ্দিন চৌধুরী আর নেই

নিউজ ডেস্ক:  আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী আর নেই।

বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে চট্টগ্রাম নগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয় (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

মহিউদ্দিনের বড় ছেলে ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিঙ্গাপুরে ১১ দিনের চিকিৎসা শেষে গত ২৬ নভেম্বর রাতে মহিউদ্দিনকে নিয়ে দেশে ফেরেন স্বজনরা। এরপর তাকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে ১২ ডিসেম্বর মহিউদ্দিনকে নিয়ে চট্টগ্রাম এসেছিলেন স্বজনরা।

৭৪ বছরের জীবনে মহিউদ্দিন চৌধুরী চট্টগ্রামের মেয়র ছিলেন ১৬ বছর। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি ছিলেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর ব্যক্তিগত সহকারী ওসমান গণি জানান, নিয়মিত ডায়ালিসিসের জন্য বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তাকে (মহিউদ্দিন) হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে অবস্থা কিছুটা খারাপ হলে ডাক্তার হাসপাতালে রাখার পরামর্শ দেন।

তিনি জানান, সন্ধ্যার পর থেকে মহিউদ্দিন চৌধুরীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। পরে রাতে তার মৃত্যু হয়।

নিজ বাসায় মৃদু হার্ট অ্যাটাক ও কিডনিজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে গত ১১ নভেম্বর চট্টগ্রামের ম্যাপ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তাকে আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এর একদিন পর মহিউদ্দিনকে হেলিকপ্টারে ঢাকায় নিয়ে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে ১৬ নভেম্বর তাকে সিঙ্গাপুরের অ্যাপোলো গ্লিনিগ্যালস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে এএনজিওগ্রাম করে হার্টের দুটি ব্লকে রিং বসানো হয়। ডায়ালিসিসের জন্য কৃত্রিম ব্যবস্থা তৈরি করা হয় হাতে।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুর খবরে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে নেমে আসে শোকের ছায়া। সকালে মহিউদ্দিনের মরদেহ নগরীর ষোলশহর এলাকায় তার চশমা হিলের বাসায় নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেও নেতাকর্মীরা ভিড় করেন।

শুক্রবার আসরের পর বন্দরনগরীর লালদীঘি মাঠে মহিউদ্দিন চৌধুরীর জানাজা হবে। পরে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শোক জানিয়েছেন।