মুনসুর হত্যার তিন বছর পর চার্জশিট, ৪৭ আসামি ৩৭ বাদ

নিউজ ডেস্ক:  ময়মনসিংহের নান্দাইলে আওয়ামীলীগ নেতা আবুল মুনসুর হত্যা মামলায় দশ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র(চার্জশিট) দিয়েছে পুলিশ। মামলাটির তদন্তে থাকা ময়মনসিংহ জেলা অপরাধ তদন্ত সংস্থা(সিআইডি) দীর্ঘ তিন বছর পর বৃহস্পতিবার মূখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এ চার্জশিট জমা দেয়।
এফআইআর ভুক্ত ৪৭ আসামি মধ্যে ১ থেকে ৩ নাম্বারসহ মোট ৩৭ জনকে বাদ দেওয়া হয়।

উক্ত চার্জশিটের প্রতিবাদে শনিবার নান্দাইল উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।  সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নিহত মুনসুরের ছোট ভাই মামলার বাদী সিরাজুল ইসলাম ভুইয়া  লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীবৃন্দ ।

লিখিত বক্তব্যে জানা যায়, ২০১৪সালের ২০ নভেম্বর স্থানীয় সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের মাঠে পৌর আওয়ামীলীগের  কর্মী সমাবেশ  চালাকালীন সময়ে হামলা চালায় একদল দুর্বৃত্ত। এতে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ক্ষতি সাধন করে। মন্চে ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক এমপি মেজর জেনারেল আব্দুস সালামসহ নেতৃবৃন্দ। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় দুর্বৃত্তরা স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো. সিরাজুল ইসলাম ভুইয়ার বড় ভাই মো. আবুল মনসুর ভুইয়াকে কুপিয়ে হত্যা করে। 

একদিন পর নান্দাইল থানায় ৪৭ জনকে অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন সিরাজুল ইসলাম ভুইয়া। পরে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য মামলাটি  ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা সংস্থার(ডিবি) কাছে হস্তান্তর হয়। সেখান থেকে ফের মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পান সিআইডি। দীর্ঘ তিন বছর তদন্তের শেষে গত বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহ মূখ্য মহানগর হাকিম আদালতে অভিযোগ পত্র(চার্জশিট) জমা দেওয়া হয়।

মামলার বাদী সিরাজুল ইসলাম ভুইয়া বলেন, তাঁর সাথে কোনো রকমের পরামর্শ ছাড়াই তদন্ত কর্মকর্তা হীন উদ্দেশ্য নিয়ে ১ থেকে ৩ নাম্বার আসামিসহ অতিব গুরুত্বপূর্ন আসামিদের বাদ দিয়ে মাত্র দশ জন আসামি রেখে বাকী ৩৭ জনকে বাদ দিয়েছেন। তিনি মনে করেন বিশেষ উদ্দেশ্যে এ ধরনের কর্ম করেছেন। তিনি বলেন, এই অভিযোগপত্র দ্রুত প্রত্যাহার করা না হলে অচিরেই মহাসড়ক অবরোধসহ, মানববন্ধন ছাড়াও হরতালের মতো কর্মসূচি ঘোষনা করা হবে।

অপর দিকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও ময়মনসিংহ জেলা অপরাধ তদন্ত সংস্থার সহকারী পুলিশ সুপার(এএসপি) আনিসুর রহমান বলেন, কোনো সুবিধা বা হীন উদ্দেশ্যে নয় সঠিক স্বাক্ষ্য প্রমানে যাচাই-বাচাইয়ের পর হত্যায় সরাসরি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র(চার্জশিট) জমা দেওয়া হয়েছে। বাদীর সাথে কথা বলেছিলেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, একাধিবার কথা বলা ছাড়াও সরেজমিনে ঘটনাস্থলে যাওয়া হয়েছে।