চিকিৎসা শিক্ষা ও সেবায় ব্যাপক দুর্বৃত্তায়ন ঘটেছে

নিউজ ডেস্ক: দেশের বিশিষ্ট চিকিৎসক ও চিকিৎসক নেতারা বলেছেন, দেশের চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে ব্যাপক দুর্বৃত্তায়ন ঘটেছে। বেশির ভাগ বেসরকারি হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ পরিচালিত হচ্ছে শুধু মুনাফার জন্য। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) চিকিৎসকদের পেশাগত স্বার্থ দেখার চেয়ে রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি পালনে বেশি ব্যস্ত।

গতকাল বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে আয়োজিত ডক্টরস ফর হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টের নবম জাতীয় সম্মেলনে তারা এ কথা বলেন। দেশের বিভিন্ন জেলায় কর্মরত সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসকরা এ সম্মেলনে যোগ দেন। সম্মেলনের মূল স্লোগান ছিল— ‘চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবায় দুর্নীতি, দুর্বৃত্তায়ন, অব্যবস্থাপনা ও দলবাজি বন্ধ করতে হবে।’

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, দেশে ও বিদেশে বেসরকারি শিক্ষার মধ্যে একটা তফাত আছে। যে সনদ-বাণিজ্য এ দেশে দেখা যাচ্ছে, তা অন্য দেশে দেখা যায় না।

তিনি বলেন, সরকারের কাজের ওপর প্রভাব রাখতে হলে সংগঠন গড়ে তোলা খুব জরুরি। সংগঠন থেকে চাপ অব্যাহত রাখলে সরকার একদিন না একদিন কথা শুনবেই।

সম্মেলনটি ছিল দুটি পর্বে বিভক্ত। প্রথম পর্বে ছিল আলোচনা এবং দ্বিতীয় পর্বে সংগঠনের সাধারণ সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

আলোচনায় বিএমএর সাবেক সভাপতি অধ্যাপক রশীদ-ই-মাহবুব, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি অধ্যাপক সারোয়ার আলী, ডাকসুর সাবেক সাধারণ সম্পাদক চিকিৎসক মোশতাক হোসেন, ডক্টরস ফর হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টের সাধারণ সম্পাদক চিকিৎসক কাজী রফিকুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

ডক্টরস ফর হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টের সভাপতি অধ্যাপক নাজমুন নাহারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সম্মেলন প্রস্তুতি পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আবু সাঈদ।