প্রধান বিচারপতির পদত্যাগপত্র বঙ্গভবনে

নিউজ ডেস্ক: বিদেশে অবস্থানরত প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন বলে যে খবর বেরিয়েছিল অবশেষে তার সত্যতা মিলেছে।

শনিবার দুপুরে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন সমকালকে জানিয়েছেন, প্রধান বিচারপতির পদত্যাগপত্র রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে এসে পৌঁছেছে।

তিনি জানান, প্রধান বিচারপতির পদত্যাগপত্রটি সিঙ্গাপুর দূতাবাস থেকে রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে পাঠানো হয়।

এর আগে সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছিলেন, প্রধান বিচারপতি পদত্যাগ করেছেন বলে খবর বের হলেও তার পদত্যাগ রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে এসে পৌঁছায়নি।

এছাড়া রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রীও একই ধরনের কথা জানান। তিনি জানান, প্রধান বিচারপতির পদত্যাগের খবর তিনি গণমাধ্যমে শুনেছেন এবং এ বিষয়ে কোনো কাগজপত্র তার কাছে আসেনি।

সরকারের দুই মন্ত্রীর এমন বক্তব্যের মধ্যেই দুপুরে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব প্রধান বিচারপতির পদত্যাগপত্র পাওয়ার কথা জানালেন।

জানা যায়, অস্ট্রেলিয়া থেকে গত সোমবার চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে শুক্রবার কানাডার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন তিনি। কানাডার উদ্দেশ্যে সিঙ্গাপুর ছাড়ার আগেই দেশটিতে বাংলাদেশের দূতাবাসের মাধ্যমে পদত্যাগপত্র পাঠান তিনি।

ছুটিতে থাকা প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা পদত্যাগ করেছেন বলে শুক্রবার গভীর রাতে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে খবর প্রচার করা হয়। ‘ব্রেকিং নিউজ’ হিসেবে প্রচারিত এ খবরে বলা হয়- ‘রাষ্ট্রপতির কাছে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা।’ এর কিছুক্ষণের মধ্যে আরও কয়েকটি চ্যানেলের স্ক্রলে সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ হিসেবে একই তথ্য প্রচার করা হয়। তবে কোনোটিরই তথ্যসূত্র ছিল না।

তাৎক্ষণিকভাবে সমকালের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের স্পেশাল অফিসার ও তথ্য কর্মকর্তা সাইফুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ-সংক্রান্ত চিঠির বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।

পরে সুপ্রিম কোর্টের দায়িত্বপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার জেনারেল জাকির হোসেন জানান, ‘ছুটির মেয়াদ শেষ হলেও কাজে যোগ দেওয়া বা ছুটি বাড়ানোর ব্যাপারে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার কাছ থেকে কোনো চিঠি তারা এখনও পাননি।’

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়সহ বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে গত ২ অক্টোবর অসুস্থতাজনিত কারণে ছুটিতে যান প্রধান বিচারপতি। ১৩ অক্টোবর তিনি অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন। যাওয়ার আগে প্রধান বিচারপতি লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি অসুস্থ নই। পালিয়েও যাচ্ছি না। সাময়িকভাবে যাচ্ছি। আবার ফিরে আসব। বিচার বিভাগের মর্যাদা রক্ষার জন্য যাচ্ছি। সরকারকে ভুল বোঝানো হয়েছে।’

পরদিন এ ঘটনায় সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন এক বিবৃতিতে জানায়, প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ১১টি দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে তার কাছ থেকে কোনো সদুত্তর পাওয়া যায়নি।