অস্ত্রের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কালাশনিকভ বানাচ্ছে মোটরসাইকেল!

নিউজ ডেস্ক : কালাশনিকভ। স্বয়ংক্রিয় অ্যাসল্ট রাইফেলের সংজ্ঞাই পাল্টে দিয়েছিল এই  প্রতিষ্ঠানের একে-৪৭ রাইফেল। ১৯৪৯ সালে ব্যবহার শুরু হওয়ার পর থেকে এখনো পর্যন্ত এই রাইফেলের বাজার রমরমা। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসার ধরন তো পাল্টাতেই হয়। এবার রুশ প্রতিষ্ঠানটি ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল তৈরির জন্য প্রস্তুত হচ্ছে।

এনডিটিভির খবরে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত রাশিয়ার অন্যতম বৃহৎ অস্ত্র নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হলো কালাশনিকভ। প্রতিষ্ঠানটির তৈরি প্রথম ৫০টি বিদ্যুৎ-চালিত মোটরসাইকেল আগামী বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে মস্কোর পুলিশ বিভাগ ব্যবহার করবে। এ বছরই রুশ সামরিক বাহিনীর জন্য বিদ্যুৎ-চালিত মোটরসাইকেল তৈরি করবে কালাশনিকভ। তবে এসব মোটরসাইকেলের বিস্তারিত তথ্য জানা সম্ভব হয়নি। পুলিশ বিভাগ যেসব মোটরসাইকেল ব্যবহার করবে, ধারণা করা হচ্ছে, সেগুলোর গতি হবে সর্বোচ্চ ১৫০ কিলোমিটার।

রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর জন্য যে মোটরসাইকেল তৈরি করা হচ্ছে, সেটি হলো এনডুরো স্টাইলের। অন্যদিকে পুলিশ বাহিনীকে দেওয়া হবে সুপারমোটো স্টাইলের মোটরসাইকেল। সামরিক বাহিনীর মোটরসাইকেলের ছাপা ছাপা রং হবে এবং অস্ত্র রাখার জায়গা থাকবে। কালাশনিকভের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান রাশিয়ান মোটরসাইকেল ম্যানুফ্যাকচারার আইজেডএইচ এসব মোটরসাইকেল তৈরি করেছে।

এ ব্যাপারে কালাশনিকভের ওয়েবসাইটে একটি ভিডিও চিত্র প্রকাশিত হয়েছে। মোটরসাইকেলগুলোর প্রযুক্তিগত দিক নিয়ে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি। বিদ্যুৎ-চালিত হওয়ার কারণে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় এসব মোটরসাইকেলে নিঃশব্দে চলাচল করা যাবে।

তবে শুধু রাশিয়া নয়, যুক্তরাষ্ট্রও এমন বিদ্যুৎ-চালিত যান তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছে। মার্কিন সেনাদের জন্য সাইলেন্টহক নামের একটি মোটরসাইকেল তৈরির কাজ চলছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, সাইলেন্টহকে উন্নত মানের হাইব্রিড ইঞ্জিন ব্যবহার করা হচ্ছে। এর তত্ত্বাবধান করছে পেন্টাগনের ডিফেন্স অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি।