আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

ঢাকা, ২৭ আশ্বিন (১২ অক্টোবর ) : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৩ অক্টোবর ‘আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস-২০১৭’ উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :  “বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও ১৩ই অক্টোবর ‘আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস-২০১৭’ পালন করা হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘ঐড়সব ঝধভব ঐড়সব’ অর্থাৎ ‘দুর্যোগ সহনীয় আবাস গড়ি, নিরাপদে বাস করি’ যথার্থ হয়েছে বলে আমি মনে করি।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দুর্যোগ ঝুঁকিহ্রাস কর্মসূচি প্রণয়নের পথিকৃৎ। তিনি ঘূর্ণিঝড় থেকে জানমাল রক্ষায় মুজিব কিল্লা নির্মাণের ব্যবস্থা করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বেচ্ছাসেবক নিয়োজনের প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থা হিসেবে ১৯৭৩ সালে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) প্রতিষ্ঠা করেন যা আজ সারাবিশ্বে সমাদৃত।

আমাদের সরকার দুর্যোগ ঝুঁকিহ্রাস কার্যক্রমে কাঠামোগত ও অবকাঠামোগত বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে চলেছে। দুর্যোগ বিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলি অধিকতর পরিমার্জিত আকারে ২০১০ সালে ঝঃধহফরহম ঙৎফবৎং ড়হ উরংধংঃবৎ নামে প্রকাশিত হয়। এছাড়া আমরা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আইন-২০১২, জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নীতিমালা-২০১৫ সহ গুরুত্বপূর্ণ আইন ও নীতিমালা প্রণয়ন করেছি। জনগণ যাতে বিনামূল্যে আবহাওয়ার বার্তা পায় সেজন্য আমরা যে কোনো মোবাইল থেকে ১০৯০ নম্বরে (টোল ফ্রি) ফোন করে আবহাওয়া বার্তা পাওয়ার ব্যবস্থা করেছি।

ভ‚মিকম্প মোকাবিলায় ইতোমধ্যেই ১৬৯ কোটি টাকার উদ্ধার সামগ্রী ক্রয় করা হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা তহবিল গঠন, ন্যাশনাল ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠার জন্য জমি বরাদ্দের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ও বন্যা আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। ১৩ হাজার ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ প্রকল্প চলমান আছে। মুজিব কিল্লা নির্মাণ প্রকল্প এবং গ্রামীণ রাস্তা হেরিং বোন বল্ড করার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

এবারের হাওড় অঞ্চলের ৬টি জেলায় আকস্মিক ও নজিরবিহীন বন্যা, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান ও চট্টগ্রামের পাহাড়ধস, উপক‚লীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় মোরা ও উত্তর অঞ্চলসহ দেশের ৩৫টি জেলায় দুই দফায় ব্যাপক বন্যা সরকার সফলতার সাথে মোকাবিলা করেছে। বজ্রপাত মোকাবিলায় ইতোমধ্যেই সারাদেশে ১০ লাখ তালগাছ রোপণ কার্যক্রম চালু হয়েছে।

বজ্রপাত ও ভ‚মিকম্পের মতো দুর্যোগ মোকাবিলায় সরকারি পদক্ষেপের পাশাপাশি আমাদের সকলকে সচেতন হতে হবে। বিল্ডিং কোড অনুসরণ করে ভবন নির্মাণ করতে হবে। আরো অধিক সংখ্যক নগর স্বেচ্ছাসেবক তৈরি করতে হবে। প্রত্যেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস আদালত, শিল্পকারখানা, মার্কেট ও ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে নিজস্ব প্রশিক্ষিত দুর্যোগ স্বেচ্ছাসেবক তৈরি করতে হবে।

আমি আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস-২০১৭’ এর সার্বিক সাফল্য কামনা করি।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”