জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী

নিউজ ডেস্ক : রাষ্ট্রপতি মোঃ আবুদল হামিদ জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস উপলক্ষে নি¤েœাক্ত বাণী প্রদান করেছেন :

‘‘শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অর্গানাইজেশন (এনপিও) দেশব্যাপী জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস উদযাপন করছে জেনে আমি আনন্দিত।

দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ও টেকসই উন্নয়নের জন্য উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই। উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি জনগণের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। তাই অর্থনীতির সকল খাতে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি অপরিহার্য বলে আমি মনে করি। বিশ্বায়ন প্রক্রিয়া দ্রব্য ও সেবার বাণিজ্যিক কার্যক্রমে ব্যাপক প্রতিযোগিতার সৃষ্টি করেছে। তাই অবাধ প্রতিযোগিতামূলক বর্তমান বিশ্বে টেকসই উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন দ্রব্য ও সেবার গুণগতমান নিশ্চিত করা। এনপিও এ গুরুত্ব উপলব্ধি করে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির জন্য কৃষি, শিল্প ও সেবাখাতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষণ ও উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে, যা খুবই সময়োপযোগী।

সরকারের জনকল্যাণমুখী নানা কর্মসূচির কারণে দেশ ক্রমাগত প্রবৃদ্ধি, উন্নয়ন ও অগ্রগতি অর্জনসহ সমতাভিত্তিক সমাজ বিনির্মাণে এগিয়ে যাচ্ছে। জনগণের মাথাপিছু আয়, জীবনযাত্রার মান, আয়ুষ্কাল বৃদ্ধি পাচ্ছে; হ্রাস পাচ্ছে দারিদ্র্য। একটি সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সরকার ‘ভিশন-২০২১’ ও ‘ভিশন ২০৪১’ ঘোষণা করেছে।

তা ছাড়া ২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার চ্যালেঞ্জ অর্জনেও সরকার বদ্ধপরিকর। এ লক্ষ্য অর্জনে সকল সেক্টরে উন্নয়ন বেগবান করা আবশ্যক। উৎপাদনশীলতা দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচি এ ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস। জাতীয় উৎপাদনশীলতা বাড়াতে হলে এনপিও’র পাশাপাশি মালিক-শ্রমিক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস সফল হোক-এ কামনা করি।

খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।’’