মঠবাড়িয়ায় স্বামী গরম পানি দিয়ে স্ত্রীর শরীর ঝলসে দিল

মজিবর রহমান,পিরোজপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় যৌতুকের দাবীকৃত টাকা না পেয়ে ফুটন্ত গরম পানি দিয়ে স্ত্রী জেসমিন আক্তারের শরীর ঝলছে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী। গত সোমবার (২৫ আগষ্ট) রাতে উপজেলার ধানীসাফা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত জেসমিন (২৪) গত তিনদিন ধরে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। জেসমিন উপজেলারর ধানীসাফা গ্রামের মিজান হাওলাদারের স্ত্রী ও উত্তর মিঠাখালী (মাঝের পুল) গ্রামের আ. বারেকের মেয়ে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধুর পিতা জামাই মিজানকে আসামী করে বুধবার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করলে থানা পুলিশ বুধবার বিকেলে মিজানকে হাসপাতাল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেন।

, মামলা সূএে জানা যায়,উপজেলা ধানীসাফা গ্রামের মো. খলিল হাওলাদারের পুত্র জাহাজ কর্মচারী মো. মিজান হাওলাদারের সাথে ৬ বছর পূর্বে উত্তর মিঠাখালী গ্রামের আ. বারেকের কন্যা জেসমিনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে মিজান স্ত্রী জেসমিনকে ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে বিভিন্ন সময় চাপ দিয়ে আসছিল। এ দম্পত্তির আলিফা নামের দেড় বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। গত শুক্রবার মিজান চট্টগ্রাম থেকে ছুটিতে বাড়ি এসে আবারও যৌতুকের টাকার জন্য চাপ দিলে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে বাক বিতন্ডা হয়। এক পর্যায় গত সোমবার গভীর রাতে শিশু সন্তান নিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় স্ত্রী জেসমিনের ওপর ফুটন্ত গরম পানি নিক্ষেপ করে।

এতে শিশুটি অক্ষত থাকলেও জেসমিন দগ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়। স্বজনরা খবর পেয়ে ওই রাতেই পৌর শহরের কুয়েত প্রবাসী হাসপাতাল ও পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কে এম তারিকুল ইসলাম জানান, মামলা দায়েরের পরপরই পাষন্ড মিজানকে বুধবার বিকেলে হাসপাতাল এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।