ডোমারে সীমাহিন লোডশেডিং অতিষ্ঠ জনজীবন

বখতিয়ার ঈবনে জীবন,ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি ঃ নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার চিলাহাটিতে প্রতিদিন বিদ্যুতে বিভ্রাট চলছে । দিনের পর দিন ঘন্টার পর ঘন্টা চলছে লোড সেডিং । দৈনন্দিন ২৪ ঘন্টার মধ্যে রাতে ৪ ঘন্টা দিনে ৫ মিনিট, ১০ মিনিট, ১৫ মিনিট পর্যন্ত পর্যাক্রমে ৮ ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকে। চিলাহাটিতে বিদ্যুতের লোড সেডিং এর কারণে হাজার হাজার শিক্ষার্থী, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, ক্ষুদ্র কলকারখানা, বসত বাড়ী সহ নানা কাজে মারাত্মক সমস্যা দেখা দিয়েছে। এলাকার কিছু সংখ্যাক মানুষ বিদ্যুতের উপর নির্ভর করে তাদের পরিবার পরিজনকে অন্ন প্রদান করে, তারা আজ না খেয়ে দিনাতিপাত করছে।

এরই কারনে এক শ্রেনীর মানুষগুলো উচ্চ সুদে ঋনগ্রস্থ হচ্ছে বলে জানা যায়। বিদ্যুতের লোড সেডিং এর ব্যপারে ডোমার আবাশিক প্রকৌশলীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে বার বার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিফ করেন না। পরবর্তীতে নির্বাহী প্রকৌশলী নীলফামারী বিদ্যুৎ বিভাগ এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, চিলাহাটির বিদ্যুৎ বিভ্রাটের সম্পর্কে পূর্বের থেকেই সব জানেন এবং বলেন আবাসিক প্রকৌশলী ডোমার এর সাথে তিনি কথা বলবেন। কিন্তু আজ কয়েক দিন অতিবাহিত হয়ে গেল কোন সুফল পাওয়া যায়নি।

এলাকার সাধারণ গ্রাহকদের মন্তব্য উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ ঠিকই হয়তো কথা বলেছে, ডোমার আবাসিক প্রকৌশলীর যোগশাযোশে চিলাহাটির কয়েকজন দালালের মাধ্যমে চিলাহাটির চতুর দিকে দেশের সীমান্ত পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার বিদ্যুতের লাইন বাঁশের খুটি দ্বারা স¤প্রসারণ করেছে এবং প্রতিটি গ্রাহকের কাছে ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা হাতিয়েছে। যাহা সম্পূর্ন অবৈধ ও বে-আইনী। সচেতন বিদ্যুৎ গ্রাহক গন বলেন বিদ্যুৎ বিভাগের উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ তলিয়ে, খুটিয়ে দেখলে এমন কিছু মিটার পাবেন যাহার কোন অফিশিয়াল খাতাপত্রে এন্ট্রিই হয়নি।

আবার সেচের এমন কিছু সংযোগ আছে মিটারের ব্যবহারিত ইউনিট বাদ দিয়ে সেচ মৌসুমে চুক্তিবদ্ধের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে। এরকম অবৈধ বে আইনী মিটার এলাকায় প্রায় ৪/৫ শতাধীক রয়েছে বলে জানা যায়। গ্রাহকরা জানান,কিছু সংখ্যাক অসাধু কর্মকর্তা এবং এলাকার কয়েকজন দালালদের অপকর্মে অবৈধ ও বেআইনি কর্মকান্ডের ফলে আজ আমাদের মত সাধারণ গ্রাহকদের ভোগান্তির শিকার পোহাতে হচ্ছে। তাই এলাকার বিদ্যুৎ গ্রাহক, গন্য মান্য, শিক্ষার্থী, অভিভাবক সহ সুধিমহল বিদ্যুতের এই লোড শেডিং এর খেলা থেকে বাঁচতে চায় তাই বিষয়টির দিকে সুদৃষ্টি দেওয়ার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

 

বখতিয়ার ঈবনে জীবন
ডোমার নীলফামারী