বাংলাদেশের মানুষের উদারতা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত

নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, স্থান ও সম্পদের সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও বাংলাদেশের জনগণ মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা অসহায় ও নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে তাদের খাদ্য ও অন্যান্য সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের মানুষের এ উদারতা ও মহানুভবতা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হচ্ছে। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশনে ভাষণ প্রদানের পর গতকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় সকালে নিউইয়র্কে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে আয়োজিত জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের এবারের অধিবেশনে অংশ নিয়ে আমি সাধারণ বিতর্ক পর্ব, ওআইসি কনট্যাক্ট গ্রুপের উচ্চ পর্যায়ের সভাসহ সব দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে রোহিঙ্গা সমস্যা তুলে ধরেছি। চার লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ায় বিশ্ব নেতারা আমাদের প্রশংসা করেছেন। সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এবারের জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন এমন একটি সময় অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন মিয়ানমারে জাতিগত নিধন অভিযানের ফলে হাজার হাজার নিরীহ রোহিঙ্গা প্রতিদিন প্রাণভয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে।

গত তিন সপ্তাহে চার লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এদের বেশিরভাগই নারী, শিশু ও বয়স্ক। আগে থেকেই চার লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ছিল। ফলে বর্তমানে মোট আট লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী আমাদের দেশে অবস্থান করছে। এদের খাদ্য, বাসস্থান ও জরুরি সহায়তা সংকুলান এবং এদের স্বদেশে প্রত্যাবাসন নিয়ে আমরা জটিল সংকটের মুখোমুখি।

লিখিত বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এবারের অধিবেশনে আমি রোহিঙ্গা সমস্যা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তুলে ধরার পাশাপাশি এ সমস্যা সমাধানে মুসলিম বিশ্বসহ সবার সহযোগিতা কামনা করি। সামগ্রিকভাবে এবারের জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে শান্তি, নিরাপত্তা ও উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের অবদান ও ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল ও সুসংহত হয়েছে।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি জাতিসংঘের ৭২তম অধিবেশনের সাধারণ বিতর্ক পর্বে অংশ নিয়ে রোহিঙ্গা সমস্যার কথা জোরালোভাবে তুলে ধরেছেন। এই সংকটের স্থায়ী সমাধানে তিনি জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সামনে যে প্রস্তাবগুলো তুলে ধরেছিলেন, সেই প্রস্তাবগুলোর কথাও বলেন তিনি।

তুরস্ক ও ইরানের রাষ্ট্রপতিসহ মুসলিম বিশ্বের বেশ কয়েকজন নেতা ওআইসি কনট্যাক্ট গ্রুপের সভায় বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এসব দেশ বাংলাদেশকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন। সভায় আমি রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর চলমান নির্যাতন বন্ধে এবং মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের স্বদেশ প্রর্ত্যাবতন নিশ্চিত করতে ওআইসির পক্ষ থেকে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানাই।

লিখিত বক্তব্যের পর প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তার ছোট বোন শেখ রেহানা বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। শেখ রেহানা প্রধানমন্ত্রীকে বলেছিলেন, ‘তুমি ১৬ কোটি মানুষকে খাওয়াতে পারো, আর ১০ লাখ মানুষকে খাওয়াতে পারবা না?’ এর জবাবে প্রধানমন্ত্রী তার বোনকে বলেন, ‘ঠিকই তো। ১৬ কোটি মানুষকে পারলে, ১০ লাখকে কেন খাওয়াতে পারবো না?’ আরেক প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতিসংঘের মহাসচিবের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে।

দরিদ্র দেশ হলেও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় তিনি বাংলাদেশের ভূঁয়সী প্রশংসা করেছেন। উনি আশ্বাস দিয়েছেন, রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে উদ্যোগ গ্রহণের পদক্ষেপ নেবেন। এ বিষয়ে যথাসাধ্য করার চেষ্টা করবেন তিনি।’