ডিএসইতে আবারও চার রেকর্ড

নিউজ ডেস্ক:  সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে রোববার দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) আবারও নতুন চারটি রেকর্ড হয়েছে। তিনটি সূচক ও বাজার মূলধন মিলিয়ে এ রেকর্ড হয়েছে।

ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স গতকাল দিন শেষে ৫২ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ১৬৭ পয়েন্টে। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে নতুন করে চালু হওয়ার পর এটিই ডিএসইএক্স সূচকের সর্বোচ্চ অবস্থান। মূলত সূচকটি ৬ হাজারের মাইলফলক অতিক্রম করে নতুন এক উচ্চতায় ওঠার পর রেকর্ডের পরিমাণও বেড়েছে। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে সূচক একটানা বাড়লে প্রতিদিনই ডিএসইএক্স সূচকে রেকর্ড হবে।

রেকর্ড হয়েছে বাছাই করা ৩০ কোম্পানির সমন্বয়ে গঠিত ডিএস-৩০ ও শরিয়াভিত্তিক ডিএসইএস সূচকেও। ডিএস-৩০ সূচকটি গতকাল ২৩ পয়েন্ট বা প্রায় ১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২০১ পয়েন্টে। আর শরিয়া সূচক ডিএসইএস ২০ পয়েন্ট বা প্রায় দেড় শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৩৬৮ পয়েন্টে।

ডিএসইর বাজার মূলধন গতকাল বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ১২ হাজার ১৮৭ কোটি টাকায়। ২০১০ সালেও বাজার ফুলে-ফেঁপে ওঠার সময়েও বাজার মূলধন ৪ লাখ কোটি টাকা ছাড়ায়নি। সাম্প্রতিক সময়ে সেটি ৪ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

এদিকে গতকাল দিন শেষে নতুন উচ্চতায় উঠেছে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত টেলিকম খাতের একমাত্র কোম্পানি গ্রামীণফোনের শেয়ারের দাম। গতকাল এক দিনেই কোম্পানিটির ২১ টাকা ৪০ পয়সা বা সোয়া ৫ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৪২৮ টাকায়। ২০০৯ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার পর গতকালই সর্বোচ্চ দামে ওঠে কোম্পানিটির শেয়ার। সাম্প্রতিক এ উত্থান বাদ দিলে এর আগে ২০১০ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ৩৯৫ টাকা এবং ২০১৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর ৪০৯ টাকায় উঠেছিল কোম্পানিটির শেয়ারের দাম।

এক গ্রামীণফোনই গতকাল বাজারে সূচক বেশ খানিকটা বাড়িয়ে দিয়েছে বলে বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অভিমত। এ ছাড়া ব্যাংকের শেয়ারের দামও সূচকে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে গতকালের বাজারে। পাশাপাশি ছিল ভালো মৌলভিত্তির বড় মূলধনি কোম্পানির শেয়ারের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাবও।

ঢাকার বাজারে মূল্যবৃদ্ধির শীর্ষে ছিল বহুজাতিক কোম্পানি লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট। ১ হাজার ১৬১ কোটি টাকার মূলধনের এ কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের দাম ৫ টাকা ৯০ পয়সা বা ১০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৫ টাকায়। বহুদিন পর কোম্পানিটির শেয়ারের দামের এমন উল্লম্ফন ঘটল। বাংলাদেশে লাফার্জ সুরমা সিমেন্টের সঙ্গে হোলসিমের একীভূত হওয়ার প্রক্রিয়াটি এখনো সম্পন্ন হয়নি। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনের জন্য রয়েছে বিষয়টি। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন পেলে হোলসিমকে কেনার আর্থিক লেনদেনের বিষয়টি সম্পন্ন হবে।

ঢাকার বাজারে দিন শেষে লেনদেনের পরিমাণ ছিল প্রায় ১ হাজার ২৬০ কোটি টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে ১১৬ কোটি টাকা বেশি।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচকটি গতকাল ১৪১ পয়েন্ট বেড়ে ১৯ হাজার ১০০ পয়েন্ট ছাড়িয়েছে। দিন শেষে সেখানকার বাজারে লেনদেনের পরিমাণ ছিল প্রায় ৭৮ কোটি টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে ২৫ কোটি টাকা বেশি।