রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি বর্ণনার ভাষা নেই: রেডক্রস

নিউজ ডেস্ক: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতার পর বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত প্রায় চার লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম আশ্রয় নিয়েছে। এসব মানুষ চরম মানবিক সংকটের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। সেখানকার পরিস্থিতি বর্ণনার ভাষা জানা নেই। ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব দ্য রেড ক্রস এন্ড রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিজ (আইএফআরসি) এর মুখপাত্র কোরিন আম্বলার এ কথা বলেছেন। 
 
অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক সংবাদমাধ্যম এবিসি নিউজকে তিনি বলেন, ক্রমাগত মিয়ানমার সংলগ্ন বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকার জঙ্গলের আরও গভীরে বিস্তৃত হচ্ছে রোহিঙ্গা বসতি। প্রতিনিয়ত শরণার্থী শিবিরে আগমন ঘটছে নতুন নতুন মুখের। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর-এর হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতিদিন প্রায় ২০ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে আসছে।
 
রোহিঙ্গা শিবিরের দুরবস্থার কথা উল্লেখ করে মুখপাত্র কোরিন বলেন, এই পরিস্থিতি বর্ণনা করার ভাষা আমার জানান নেই। সেখানে শুধু মানুষের ভোগান্তি। সেখানে বিশুদ্ধ পানির অভাব, আমরা দেখেছি লোকজন অর্থ, খাবার-দাবার নিয়ে নিজেদের মধ্যে বিবাদে জড়াচ্ছ। সত্যিকার অর্থে এটি আকস্মিক বিপর্যয়।
এদিকে আইএফআরসি-এর উপ আঞ্চলিক পরিচালক মার্টিন ফলার ত্রাণপ্রার্থীদের পরিস্থিতি বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন, এ এক বেপরোয়া পরিস্থিতি। যতগুলো মানবসৃষ্ট বড় বড় সংকট রয়েছে তার মধ্যে এটি অন্যতম। লোকজনের খাবার নেই, পানি নেই, আশ্রয় নেই। সহায়তা পাওয়ার জন্য তারা মরিয়া হয়ে আছে। কক্সবাজার অঞ্চলে জরুরি সহায়তার জন্য আইএফআরসি যে পরিমাণ তহবিলের আবেদন করেছিল তা বাদ দিয়ে নতুন আবেদন করেছে সংস্থাটি। বিপন্ন রোহিঙ্গাদের জন্য অস্থায়ী হাসপাতাল স্থাপন ও পানি বিশুদ্ধকরণের জন্য ১২ দশমিক ৭ মিলিয়ন সুইস ফ্রাংক সহায়তার আবেদন করা হয়েছে।
 
এদিকে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর বলেছে, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মানবিক পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি হচ্ছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে এটিই সবচেয়ে দ্রুত বর্ধমান সংকট। ইউএনএইচসিআর এর মুখপাত্র আন্দ্রেজ মাহেসিচ এর বরাত দিয়ে ইউএন নিউজ সেন্টারের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে। তিনি বলেন, অধিক সংখ্যক রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশে বাংলাদেশের কক্সবাজারে নানা ধরনের সমস্যা তৈরি করেছে। এতো সংখ্যক মানুষের মানবিক সহায়তার জন্য পর্যাপ্ত সম্পদ নেই।
 
অন্যদিকে জাতিসংঘ জানিয়েছে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের সংখ্যা চার লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত চার লাখ ৯ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকেছে। প্রতিদিন গড়ে ১৮ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আসছে।