নেত্রকোনায় ৫৬ মন্দিরে দূর্গা পূজার প্রস্তÍুতি

দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)প্রতিনিধি: শরতের কাশ ফুলের সাদা শুভ্রতা মনে করিয়ে দেয় বিপদ নাশিনী দেবীর আগমনী বার্তা। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ এ ধর্মীয় উৎসবকে সামনে রেখে শারদীয় উৎসবের অন্যতম দুর্গা পূঁজার প্রতিমা তৈরিতে এখন মহাব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রতিমা তৈরির শিল্পীরা। হিন্দু ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা এবছর নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলায়র ৫৬টি মন্দিরে দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। শারদীয় দুর্গা পূজাকে কেন্দ্র করে পূজামন্ডপগুলোতে প্রতিমা তৈরির কাজ চলছে পুরোদমে।

সোমবার উপজেলার দশভ‚জা মন্দির, কালীবাড়ী, মিলন সংঘ, সেবা সংঘ, শিবগঞ্জ , গাঁওকান্দিয়া, বাকলজোড়া, চন্ডিগড় এলাকায় বিভিন্ন মন্দিরের মন্ডপগুলো ঘুরে দেখা গেছে-মন্দিরে মন্দিরে এখন চলছে দেবী প্রতিমার ওপর কাঁদামাটির প্রলেপের কাজ। পরবর্তীতে প্রতিমার ওপর রং তুলির আঁচড়ে দশভুজা দেবী ষষ্ঠীর দিন পাবেন জীবন্ত রূপ।

সেদিন দেবী সেজে উঠবে অপরূপ সাজে। শঙ্খ, উলুধ্বনি আর মঙ্গল সংগীতে দেবী দুর্গাকে বরণ করে নেবেন সনাতন ধর্মাম্বলী ভক্তরা। জাতির মঙ্গল কামনায় সব অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে প্রতিবছর মহালয়ারদিন দেবী দুর্গা শ্বশুরালয় থেকে পিতৃগৃহে চলে আসেন। আসুরিক শক্তির বিনাশ আর পার্থিব শান্তি, কল্যাণ ও সমৃদ্ধি লাভের জন্য হিন্দু স¤প্রদায় যুগ যুগ ধরে মা দুর্গার আরাধনা করে আসছেন। এবছরও উৎসবকে ঘিরে চলছে ব্যাপক আয়োজন।

দুর্গাপুর উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির আহবায়ক মানেস সাহা জানান, আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর শুভ মহালয়া অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে দুর্গা পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। এ বছর দেবী দুর্গা নৌকায় চরে আগমন করবেন এবং দোলায় গমন করবেন। তিনি আরও জানান, আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে শারদীয় দুর্গোৎসবের মূল পুজা শুরু হয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর বিজয়া দশমীর মধ্যদিয়ে শেষ হবে।