নিউজ ডেস্ক: সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের হত্যা ও নিপীড়ন বন্ধ করতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি বলেছেন, মিয়ানমার রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর যে ধরণের অত্যাচার নির্যাতন চালাচ্ছে, তা আদিম বর্বরতাকেও হার মানিয়েছে।

শনিবার এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ। প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিয়ে ক্ষতিপূরণসহ পুনর্বাসিত করতে মিয়ানমারের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি। অন্যথায় দেশটির ওপর অবরোধ আরোপসহ কঠিন ব্যবস্থা নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান।

পবিত্র হজ পালন শেষে গত শুক্রবার দেশে ফিরে বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ বলেন, রোহিঙ্গা উদ্বাস্তু পরিস্থিতিতে তিনি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ কখনো এ ধরণের বিরাট সমস্যার সম্মুখীন হয়নি। ১০ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়া খুব কঠিন হলেও মানবিক কারণে তাদের পাশে দাঁড়াতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আর্তমানবতার পাশে আমাদের দাঁড়াতে হবে, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে হবে, সেবা দিতে হবে, চিকিৎসা দিতে হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে পরপর দু’টি বন্যায় বাংলাদেশ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। খাদ্য পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে এরশাদ বলেন, দশ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর চাপ বাংলাদেশ কতটুকু গ্রহণ করতে পারবে তা জাতিসংঘসহ উন্নত বিশ্বকে বিবেচনা করতে হবে। বাংলাদেশের পাশে দাঁড়াতে তিনি সারাবিশ্বের প্রতি আহ্বান জানান।

জাতিগত নিধনে নামা মিয়ানমার সরকারের নিন্দা করে সাবেক সেনা শাসক এরশাদ বলেন, কোনো দেশের সরকার তার নাগরিকদের এমনভাবে নির্যাতন, নারী ধর্ষন ও হত্যা, শিশু হত্যা করতে পারে, তাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিতে পারে- তা সভ্য কল্পনাও করা যায় না।