রাখাইন সংকটে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগ ও নিন্দা

নিউজ ডেস্ক: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনী ও বিদ্রোহীদের রক্তক্ষয়ী হামলায় উদ্বেগ ও নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সেই সাথে রাখাইন রাজ্যে মানবিক সাহায্য পৌাঁছানোর জন্য সেখানে প্রবেশের অনুমতি দিতে মিয়ানমার সরকারের প্রতিআহবান জানিয়েছে দেশটি। খবর আলজাজিরার।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র হেদার নরেট বৃহস্পতিরবার এ নিন্দা ও উদ্বেগের কথা জানান। তিনি বলেন, তারা পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত আছেন এবং সেখানে জরুরি মানবিক সাহায্য পৌছে দেবার জন্য রাখাইন রাজ্যে প্রবেশের অনুমতি দিতে কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন। রাখাইন রাজ্যে চলমান সহিংসতায় সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের জন্য এসব সাহায্য এখন অতি জরুরী বলে জানায় দেশটি।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র হেদার নরেট গতকাল বৃহস্পতিরবার সাংবাদিকদের বলেন, রাখাইন গ্রামগুলোতে বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়া ও রোহিঙ্গাদের ওপর নিরাপত্তাবাহিনীর নির্মম নির্যাতনে মানবাধিকার চরমভাবে লংঘিত হয়েছে। এতে সেখানকার জনগণের একটি বড় অংশ অন্যত্র সরে যাচ্ছে”। তিনি বার্মিজ নিরাপত্তাবাহিনীর ওপর হওয়া সন্ত্রাসী হামলারও নিন্দা জানান। মায়ানমারকে সন্ত্রাসবাদ দমনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে এক সাথে কাজ করার আহবানও জানান।

উল্লেখ্য, গত ২৫ আগস্ট রাখাইন রাজ্যে এক যোগে ২৭টি পুলিশ চৌকিতে সন্ত্রাসী হামলার পর “সন্ত্রাস দমন” এর নাম করে সেখানকার সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্মম নির্যাতন শুরু করে দেশটির পুলিশ, সেনা ও সীমান্ত বাহিনীর যৌথ দল। জাতিসংঘের হিসেব মতে, গত বছরের অক্টোবরের সহিংসতার পর থেকে এখন পর্যন্ত ২লক্ষ ৬৪হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করে। শুধু এবারের সহিংসতায় সে সংখ্যা প্রায় দেড় লক্ষ।