আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

নিউজ ডেস্ক:  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :
“বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালন করা হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এবারের প্রতিপাদ্য Literacy in a Digital World অর্থাৎ ‘সাক্ষরতা অর্জন করি, ডিজিটাল বিশ্ব গড়ি’ অত্যন্ত সময়োপযোগী বলে আমি মনে করি।

দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য শিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ অপরিহার্য। ২০০৯ সালে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে আওয়ামী লীগ সরকার দেশকে নিরক্ষরমুক্ত করতে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। পাশাপাশি দক্ষতাভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে জনশক্তিকে দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমরা দারিদ্র্যজনিত ঝরেপড়া রোধ করতে উপবৃত্তি কর্মসূচি এবং শিক্ষার্থীদের স্কুলে ধরে রাখতে স্কুল ফিডিং কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছি। ফলে প্রাথমিক শিক্ষাস্তরে শতভাগ শিশুকে বিদ্যালয়ে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে।

বিগত সাড়ে ৮ বছরে সাক্ষরতার হার ৪৫ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৭২ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। আমি আশা করি, ২০২১ সালের মধ্যে দেশ নিরক্ষরতার অভিশাপ থেকে মুক্ত হবে।

দেশের বিদ্যমান ২৮ শতাংশ নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষর ও দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করার জন্য সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-৪ এর উপানুষ্ঠানিক শিক্ষাসংক্রান্ত লক্ষ্যসমূহ বাস্তবায়নের জন্য দীর্ঘমেয়াদি ‘উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি’ গ্রহণ করা হয়েছে।

আসুন, সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় ‘উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির সফল বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশের সাক্ষরতার হার শতভাগে উন্নীত করি। দেশের প্রতিটি নাগরিককে দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করার মাধ্যমে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতামুক্ত ‘সোনার বাংলাদেশ’ গড়ে তুলি।

আমি ‘আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস ২০১৭’ উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসুচির সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”