ডিজিটাল মানুষ অ্যাপটি অর্থ ও সময় দুটোই সঞ্চয় করবে : আলিফ

বিশেষ প্রতিবেদন : ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ৩য় বর্ষের ছাত্র খন্দকার আলিফ যিনি ডিজিটাল মানুষ অ্যাপ এর প্রতিষ্ঠাতা। তিনি ডিপ্লোমা ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এ অধ্যয়নরত। ১ম বর্ষ হতেই AutoCAD & 3DS Max নিয়ে অনুশীলন করতে থাকে। সফটওয়্যার টেকনোলজিতে বিশেষ দক্ষতা অর্জনের পর নিজের করা কাজ গুলো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক এ প্রকাশ করতে থাকে। এরই মাঝে সে কয়েকটি ইন্টেরিয়র ফার্মে পার্ট টাইম জব করে visualizer এবং designer হিসেবে। বিভিন্ন কোম্পানির জন্য তৈরি করে দিয়েছে ২০ টিরও বেশি অফিস সাহায্যকারী সফটওয়্যার যার অর্থ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ডিজিটাল মানুষ অ্যাপ।

অ্যাপটি ব্যাবহারকারীর সংখ্যা ২ মাসে দাঁড়িয়েছে ২৮০০০ এর ও বেশি। এখন শুধু ঢাকা সিটি তে এই অ্যাপ এর ব্যবহার রয়েছে । এই সুবিধাকে আরও বাড়াতে কাজ করে যাচ্ছে ডিজিটাল মানুষ এর দল। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রদের একটি অংশ এই ডিজিটাল মানুষ আপ কে আরও উন্নত ও এর সুবিধাকে আরো বহুগুণে বাড়িয়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

ডিজিটাল মানুষ অ্যাপটি mBillionth South Asia Award 2017 অর্জন করেছে। ৪ আগস্ট ২০১৭ ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে দক্ষিণ এশিয়ার সব দেশের অংশগ্রহণে World Summit Award (WSA) এবং Digital Empowerment Foundation কর্তৃক আয়োজিত mBillionth South Asia Award 2017-তে তারা এ সম্মান অর্জন করে। Digital Manush অ্যাপের পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন অ্যাপটির প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মাদ খন্দকার আলিফ ও সাজিদ হাসান সজিব এবং Advisor of Digital Manush মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দফতরে কর্মরত কর্মকর্তা আমিন উদ্দিন জীবন।

দক্ষিণ এশিয়ার সব দেশের অংশগ্রহণে মোট ২৯৪টি মোবাইল অ্যাপস নির্মাণকারী দল এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। পরে উদ্যোক্তারা ২৯৪টি মোবাইল অ্যাপসের মধ্যে ২৯টি মোবাইল অ্যাপস বিজয়ী ঘোষণা করে। তার মধ্যে Digital Manush ভূয়সী প্রশংসার মধ্য দিয়ে অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। অ্যাপ প্রতিষ্ঠাতা খন্দকার আলিফ বলেন, ঢাকা শহরজুড়ে প্রতিদিন সেবাদানকারী গড়ে ৩০০ থেকে ৪০০ জন Digital Manush-এর প্লাটফর্ম ব্যবহার করে কাজ পাচ্ছে। অপরদিকে সাধারণ মানুষ বিনামূল্যে যথাযথ সেবা গ্রহণ করার মাধ্যমে অর্থ ও মূল্যবান সময় সঞ্চয় করতে পারছে।