জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত

নিউজ ডেস্ক : নজিরবিহীন নিরাপত্তায় জাতীয় ঈদগাহে প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃষ্টি উপেক্ষা করে বিপুল সংখ্যক মুসল্লি শনিবার সকাল ৮টায় ঈদের নামাজ আদায় করেন।

প্রধান জামাতে ইমামতি করেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের জ্যেষ্ঠ পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। নামাজ শেষে তিনি মোনাজাত পরিচালনা করেন।

মোনাজাতে রোহিঙ্গা মুসলিমসহ বিশ্বের নির্যাতিত মুসলমানদের হেফাজতের জন্য আল্লাহর দরবারে সাহায্য ও বর্নাত্যদের জন্য সহযোগিতা কামনা করেন ইমাম। দেশ, জাতি ও মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মোনাজাত শেষ করেন তিনি।

জাতীয় ঈদগাহের প্রধান জামাতে নামাজ আদায় করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সিটি মেয়র সাঈদ হোসেন খোকনসহ মন্ত্রিসভার সদস্য, বিচারপতি, কুটনৈতিক, সংসদ সদস্য, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাসহ বিভিন্ন পেশার বিপুল সংখ্যক মুসল্লি। শিশু কিশোরদের পাশাপাশি বিভিন্ন বয়সের মানুষ ও আলাদাভাবে নারীরা নামাজ পড়েন দেশের বৃহত্তম এই ঈদ জামাতে।

তবে আগে থেকেই রাষ্ট্রপতি, বিচারপতি, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, বিভিন্ন মুসলিম বিশ্বের কূটনীতিকদের এবং নারীদের জন্য আলাদা নামাজের ব্যবস্থা করা হয়। তারা সেখানেই নামাজ আদায় করেন।

নামাজ শেষে রাষ্ট্রপতি বুকে মিলিয়ে নেন মুসল্লিদের। একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি করেন। বৈষম্য ও ‍ভেদাভেদ ভুলে মিলিত হন ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে।

মুসল্লিদের নিরাপত্তায় সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রাখা হয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের। আগে থেকেই পুরো ঈদগাহ ময়দান নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়।

প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যেই শনিবার সকাল থেকে বিপুল সংখ্যক মুসল্লির ঢল নামে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে। সকাল ৮টার আগেই উপস্থিত হন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। নামাজ শেষে হঠাৎবৃষ্টিতে কিছুক্ষণ ভোগান্তিতে পড়তে হয় মুসল্লিদের। বৃষ্টিতে ভিজে মোনাজাত শেষ করে জাতীয় ঈদগাহ ছাড়েন মুসল্লিরা।

কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনি পেরিয়ে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহ মাঠে ঢুকতে হয়েছে মুসল্লিদের। নিরাপত্তার জন্য চালানো হয় প্রয়োজনীয় তল্লাশিও। শেষ পর্যন্ত কোনো অঘটন ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।