নজরুলের সৃষ্টি বেঁচে থাকবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে

নিউজ ডেস্ক: চন্দ্র মলি্লকা’ অনুষ্ঠানে আজ বিদ্রোহী কবির কোন গানগুলো শোনা যাবে? অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার আগে ঠিক করেছিলাম, জনপ্রিয় এবং অনেকে শোনেননি এমন কিছু গান গাইব। সে ভাবনা থেকেই ‘আজও বলে কোকিলিয়া’, ‘চন্দ্র মলি্লকা’, ‘বাহির দুয়ার খোল’ শিরোনামের গানগুলো নির্বাচন করেছি। এ ছাড়া কাজী নজরুলের রাগাশ্রয়ী গানগুলোর প্রতি আলাদা এক ধরনের দুর্বলতা আছে। সে জন্য গেয়েছি ‘এত জল ও কাজল চোখে’ গানটি।

অনুষ্ঠানের এ গানগুলো ‘নজরুলসঙ্গীত সমগ্র’ অ্যালবামেও রেখেছেন?

হ্যাঁ। ‘নজরুলসঙ্গীত সমগ্র’-এর সপ্তম খণ্ডে এ গানগুলো আছে। এ সংকলনে এমন কিছু গান আছে, যা অনেকে শোনার সুযোগ পাননি। শুনলে বিদ্রোহী কবির জনপ্রিয় গানগুলোর চেয়ে এর আবেদন কোনো অংশে কম বলে মনে হবে না। বহু বছর ধরে নানা জায়গা থেকে নজরুলের অজস্র গান সংগ্রহ করেছি। দিনের পর দিন সে গানগুলো নিয়ে চর্চা অব্যাহত রেখেছি। সেই সাধনা থেকেই একক কণ্ঠে হাজার গান প্রকাশের পরিকল্পনা। ‘নজরুলসঙ্গীত সমগ্র’ সেই সাধনারই ফসল বলতে পারেন।

বিদ্রোহী কবির প্রয়াণ দিবসে সুর সপ্তক কোনো আয়োজন করবে কি?

কাজী নজরুল ইসলামের প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে আজ বাংলাভিশনে লাইভ অনুষ্ঠানে গাইব। সেখানে সুর সপ্তকের ছেলেমেয়েরাও থাকবে। এর আগে কলকাতায় অনুষ্ঠিত নজরুল মেলা এবং বিটিভির বিশেষ আয়োজনে সুর সপ্তকের শিল্পীরা গেয়েছে।

নতুন প্রজন্মের এ শিল্পীদের কতটা সম্ভাবনাময় বলে মনে হয়?

এখন প্রযুক্তির কল্যাণে অনেকে সহজেই নজরুলের কালজয়ী গানগুলো শোনার সুযোগ পাচ্ছেন। একাডেমিকভাবেও নজরুলসঙ্গীত চর্চার সুযোগ বেড়েছে। আমাদের সময়ে সেটা সহজ ছিল না। ওই যে বললাম, নজরুলের সব গান সংগ্রহ করতে আমাদের অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। এ কষ্ট নতুনদের করতে হচ্ছে না। আর সম্ভাবনার কথা যেটা জানতে চাইলেন, তাহলে বলব নতুনদের অনেকেই ভালো করছে। আমরা একসময় থাকব না, তখন এই তরুণ শিল্পীরাই নজরুলের গান শোনাবে। এভাবেই নজরুলের সৃষ্টি বেঁচে থাকবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে।