বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সংবৃতার আবৃত্তি প্রযোজনা

নিউজ ডেস্ক: বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সংবৃতা আবৃত্তি চর্চা ও বিকাশ কেন্দ্র পরিবেশন করে আবৃত্তি প্রযোজনা ‘আমার পরিচয়’। আজ শনিবার সন্ধ্যা ৬:৩০ এ সুফিয়া কামাল জাতীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তন – এ এই আবৃত্তি প্রযোজনা পরিবেশন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিক জনপ্রিয় আবৃত্তি সংগঠন সংবৃতা।

শোকের মাসে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এ আবৃত্তি পরিবেশনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপর লেখা বিভিন্ন কবির ২৬ টি কবিতা দৃশ্য কল্পের পরম্পরায় সাজিয়ে উপস্থাপন করা হয়। আবৃত্তি প্রযোজনাটির স্লোগান ছিল ‘জনক তুমি সাধারন মানুষের প্রখর চৈতন্যে, রৌদ্র-ঝলসিত পথে মহা-মিছিলের পুরোভাগে’। অনুষ্ঠানাটিতে একক ও দলীয় আবৃত্তি পরিবেশন করেন তরুণ আবৃত্তি শিল্পীবৃন্দ।

প্রযোজনাটির শুরুতে প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি এ.কে.এম সামছুদ্দোহা পরিবেশন করেন সৈয়দ শামসুল হক রচিত আমার পরিচয় কবিতাটি। এরপর একে একে নির্মলেন্দু গুণের ‘কোথাও তুমি নেই’, মহাদেব সাহার ‘আমার স্বপ্নের মধ্যে’, মাহবুব উল আলম চৌধুরীর ‘ফুল আর রাষ্ট্র’, শামসুর রাহমানের ‘তিনি এসেছেন ফিরে’, লুতফর রহমান রিটনের ‘বাংলাদেশের হৃদয় জুড়ে’, মোহাম্মাদ সামাদের ‘মুজিব’, আসাদ চৌধুরীর ‘দিয়েছিলে অসীম আকাশ’, আব্দুল গাফফার চৌধুরীর ‘বঙ্গবন্ধুকে’, নূহ-উল-আলম লেলিনের ‘আমরা আজ আর শোক করবো না’, মহাদেব সাহার ‘আমি কি বলতে পেরেছিলাম’, নির্মলেন্দু গুনের ‘স্বাধীনতা, এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হল’ সহ বেশ কিছূ বিখ্যাত কবিতা পরিবেশন করা হয়।

অনুষ্টানটিতে একক ও দলীয় আবৃত্তি পরিবেশন করেন এ.কে.এম সামছুদ্দোহা, সামসুজ্জামান বাবু, নাসির উদ্দিন পিটু, লাবণ্য শিল্পী, আহমেদ রাহাত, হ্যাপী আকতার, মোগনিউজ্জামান প্রিন্স, সায়মা শারমিন, তরিকুল ফাহিম, নূপুর শর্মা, শাওন মিত্র, আফিফা হিমি, সৈকত দেব জয়, সূচনা ইসলাম, নূর-ই-জান্নাত জুইন, ত্রপা চক্রবর্তী সহ সংবৃতার নবীন প্রবীন আবৃত্তি শিল্পীরা। সবশেষে সৈয়দ শামসুল হকের লেখা ‘মুজিব! মুজিব!’ কবিতাটির দলীয় আবৃত্তির মাধ্যমে অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘটে।

আবৃত্তি প্রযোজনাটির ৩য় মঞ্চায়নে আবৃত্তিপ্রেমীদের সরব উপস্থিতিতে প্রাণবন্ত ছিল এ কবিতা পাঠের আসর। প্রায় এক হাজারের মত কবিতাপ্রেমী তন্ময় হয়ে উপভোগ করেন সান্ধ্য কালীন এ আবৃত্তি আয়োজন। সংগঠনটির সভাপতি এ কে এম সামছুদ্দোহা বলেন, ‘আবৃত্তির মতন একটি শক্তিশালী মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে জাতির জনকের আদর্শকে তরুণ সমাজের মাঝে ছড়িয়ে দিতেই সংবৃতার এই আয়োজন’। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে সংগঠনটি এক যুগের বেশী সময় ধরে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান সংবৃতার সাধারন সম্পাদক সামসুজ্জামান বাবু।

উল্লেখ্য, ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানটি আবৃত্তি শিল্পের চর্চায় ও বিকাশের লক্ষে সংবৃতা নিয়মিত আবৃত্তি কর্মশালা আয়োজন ও ব্যক্তি বা বিষয় ভিত্তিক আবৃত্তি প্রযোজনার নিয়মিত মঞ্চায়নের পাশাপাশি বিভিন্ন জাতীয় দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠান আয়োজন, আবৃত্তি উতসব ও প্রতিযোগীতার আয়োজন এবং বিশিষ্ঠ কবি ও আবৃত্তি শিল্পীদের সম্মাননা প্রদান করে প্রতিষ্ঠানটি।