সহায়ক সরকারের কোন বিকল্প নেই: ফকরুল

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের পর সরকার বিচার বিভাগকে প্রকাশ্যে করায়ত্ত করার চেষ্টা করছে। সর্বোচ্চ আদালতের রায় যখন আসে, যে কোনো রাজনৈতিক দলের বিপক্ষে গেলে তারা সংক্ষুব্ধ হতে পারে। কিন্তু সরকারের মন্ত্রীরা যে ভাষায় কথা বলছেন তা ইতিহাসে নজিরবিহীন। সরকার সারাদেশের মানুষকে জানিয়ে জোর করে রায় নিজেদের পক্ষে নেয়ার চেষ্টা করছে। তাই এখন দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা করার জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এনডিপি) সভাপতি প্রয়াত সাংবাদিক-রাজনীতিক আনোয়ার জাহিদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বর্তমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সহায়ক সরকারের কোন বিকল্প নেই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি’র উদ্যোগে এ সভার আয়োজন করা হয়।

আদালতের বিরুদ্ধে মন্ত্রীদের মন্তব্য নিয়ে প্রশ্ন রেখে ফখরুল বলেন, মানুষ প্রশাসনের কাছে আক্রান্ত হলে যায় বিচার বিভাগের কাছে। কিন্তু বিচার বিভাগের বিরুদ্ধে মন্ত্রীদের বক্তব্য সতিই দুঃখজনক। একটি বেসামরিক ব্যবস্থায় সরকার কীভাবে বিচার বিভাগের ওপরে এ ধরনের হস্তক্ষেপ করে? আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ভেঙে দিয়ে এখন রাষ্ট্রের উপর হাত দিয়েছে। রাষ্ট্রের ভিত্তি এক এক করে ধ্বংস করে দিচ্ছে।সরকার ইচ্ছে করেই দেশে সহিংসতার পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাচ্ছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, রায়ে যদি আওয়ামী লীগ সংক্ষুব্ধ হয়েই থাকে, তাহলে তারা রিভিউ করতে পারে। কিন্তু তা না করে আওয়ামী লীগ প্রকাশ্যেই জানিয়ে দিচ্ছে যে তারা এই রায়কে পরিবর্তন করে দেবে।