গাইবান্ধায় আতংক শহর রক্ষা বাঁধের ভাঙন

নিউজ ডেস্ক: শহররক্ষা বাঁধ ভেঙে গাইবান্ধায় পানি ঢুকতে শুরু করায় শহরজুড়ে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।

ঘাঘট নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ডেভিড কোম্পানি পাড়া রেললাইনের কাছে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টায় বড় আকারে এই ফাটল দেখা দেয়।

এ সময় সেখানকার মানুষজন আসবাপত্র নিয়ে ছুটোছুটি শুরু করলে শিশুদের কান্নায় ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

খবর পেয়ে পৌর মেয়র শাহ্ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবীর মিলন, কাউন্সিলর কামাল আহমেদ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে বালির বস্তা ফেলে তাৎক্ষণিকভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

মেয়র জাহাঙ্গীর বলেন, আগেভাগে টের পাওয়ায় শহরবাসী রক্ষা পেয়ে গেছে। বাঁধটি ভেঙে গেলে শহরের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ত।

মেয়র বাঁধ রক্ষায় শহরবাসীকে সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায়ও বড় আকারে ফাটল ধরে পানি ঢুকতে শুরু করায় শহরজুড়ে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। পরে এলকাবাসী ও সেনাবাহিনীর সহায়তায় বালির বস্তা ফেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

বন্যার পানি অব্যাহতভাবে বাড়তে থাকায় গাইবান্ধায় একের পর এক বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে বন্যার পানিতে ডুবছে বিভিন্ন গ্রাম। ইতোমধ্যেই জেলার গোবিন্দগঞ্জ, পলাশবাড়ী ও সাঘাটা উপজেলার পাঁচ জায়গায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে অর্ধশতাধিক গ্রাম ডুবে গেছে।

নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর বলছেন, তারা ঝুকিপূর্ণ পয়েন্টগুলোয় কাজ করছেন, আতংকিত হওয়ার কিছু নেই।

“মঙ্গলবার জেলার প্রায় ৭৮ কিলোমিটার বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধের মধ্যে ফুলছড়ির সিংড়িয়া এলাকায় ব্রহ্মপুত্র বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ১০টি পয়েন্টে লিকেজ দেখা দেয়। বালির বস্তা ও বাঁশের পাইলিং করে ওই স্থানগুলো রক্ষা করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।”

এছাড়া ঠিকাদার ও রংপুর-৬৬ ডিভিশনের সেনাসদস্যের ৮৫ জনের একটি দল কাজ করছে বলে তিনি জানান।

“আর হুমকির মুখে পড়েছে সাঘাটা-গাইবান্ধা সড়ক।”

জেলার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এলকাবাসী ও সেনাবাহিনীর সহায়তা নিয়ে রাতদিন অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন জানিয়ে জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পাল বলেছেন, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সকল প্রকার সরকারি সহায়তা পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।