যমুনার পানি বিপদসীমার ১১৯ সে.মি. ওপরে

নিউজ ডেস্ক: বগুড়ার বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। অস্বাভাবিক গতিতে বাড়তে থাকা যমুনার পানি বিপদসীমার ১১৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সারিয়াকান্দি পয়েন্টে যমুনার পানি বেড়েছে ২৯ সেন্টিমিটার। পানি দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পাওয়ায় মঙ্গলবার বিকেলে সারিয়াকান্দির কালিতলা গ্রোয়েনের উত্তর পাশে ১৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত নদী তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের ১০০ মিটার স্পার দেবে গেছে। সেখানে জরুরি ভিত্তিতে মেরামত কাজ করা হচ্ছে।

এদিকে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের বেশকিছু স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। সেসব স্থানে জরুরি মেরামত কাজ অব্যাহত রেখেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।

বগুড়ায় বন্যা কবলিত তিন উপজেলা সারিয়কান্দি, সোনাতলা ও ধুনটের প্রায় ৭৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। অপর দিকে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের আশ্রয় নেয়া লোকজনের সংখ্যাও বাড়ছে। প্রতিদিনই বন্যাকবলিত এলাকা থেকে লোকজন আশ্রয় নিচ্ছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ওপর। ইতোমধ্যে প্রায় ২ হাজার ৭শ পরিবার বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছে।

বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের বেশ কিছু পয়েন্ট ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বলে বগুড়া পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী রুহুল আমীন জানিয়েছেন। তিনি জানান, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ এলাকায় নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। বাঁধের অন্তুতঃ ১০টি পয়েন্ট ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় সেখানে মাটি উঁচু করাসহ বালুর বস্তা ফেলে মেরামত করা হয়েছে। অন্যান্য এলাকাতেও সার্বক্ষণিক নজরদারি করা হচ্ছে।

বন্যা কবলিত ৩ উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি এলাকা প্লাবিত হয়েছে সারিয়াকান্দি উপজেলায়। এখানকার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ৯টি ইউনিয়নের ৫৮টি গ্রামে পানি প্রবেশ করেছে।

জেলা ত্রাণ ও পুণর্বাসন অফিস জানায়, ওই তিন উপজেলার মোট ১৪টি ইউনিয়ন বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। এতে প্রায় দেড় হাজার হেক্টর জমির ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া মোট ৬৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি প্রবেশ করায় পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

সারিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো: মনিরুজ্জামান বলেন, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ কেটে ফেলতে পারে এমন খবরে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে। বাঁধের ভেতরের অংশে যাদের বাড়ি ঘর পড়েছে তারা পানিবন্দি হয়ে পড়ায় নাশকতা করে বাঁধ কেটে ফেলতে পারে এমন সংবাদ পাওয়া যায়। এরপর এলাকা মাইকিং করে সকলতে সতর্ক করা হয়। এছাড়া সারিয়াকান্দি থানা পুলিশ সেখানে মোতায়েন করা হয়েছে। এ পর্যন্ত দুর্গতদের জন্য ৫০ মেট্রিক টন চাল এবং নগদ এক লাখ টাকা বরাদ্দ মিলেছে।